অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বিশ্ব শিক্ষক দিবস ও আন্তর্জাতিক কন্যা শিশু দিবস।


মানুষ কিংবা সমাজ গড়ার কারিগর যাই বলি না কেন শিক্ষকদের অবদান খাটো করে দেখার সুযোগ নেই ।
‘টেকসই সমাজ গঠন, শিক্ষকদের ক্ষমতায়ন’ প্রতিপাদ্য নিয়ে এ বছর ৫ অক্টোবর পালিত হলো ‘বিশ্ব শিক্ষক দিবস’। কথা বলেছিলাম তেজঁগাও সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহরীন খান রুপার সাথে । তিনি বললেন, সম্মান দেখানোর জন্য হোক আর মূল্যবোধের কারনেই হোক শিক্ষক দিবস পালনের মাধ্যমে বিনয়ী হবার ভিত্তিটা খুজে পাচ্ছে শিক্ষার্থীরা । শিশুদের পরিচর্যার কথা বলতে গিয়ে তিনি উল্লেখ্য করলেন, বিদ্যালয় থেকেই শিশুর মানসিক এবং বুদ্ধিভিত্তিক বিকাশের শুরু । তার জন্য চাই তার চারপাশের মানুষের সহযোগিতা । শিশুকে বকা-ঝকা না করে বুঝিয়ে বলে সম্ভব সঠিক পথে পরিচালিত করা । নিশ্চিত করা জরুরী শিশুর শারিরীক এবং মানসিক সুরক্ষা । কারন একসময় নতুন প্রজন্মের হাতে দেশের নেতৃত্ব আসবে । ছাত্রজীবনের এই শিক্ষার প্রতিফলন থাকবে তার ব্যক্তিগত তথা কর্মক্ষেত্রে ।

আসছে ১১ অক্টোবর আন্তর্জাতিক কন্যা শিশু দিবস । দিবসের এবারের প্রতিপাদ্য ‘কিশোরীর ক্ষমতায়ন : লক্ষ্য ২০৩০’। একটি কন্যাশিশু নিজেকে যেন সমাজে বাধাহীনভাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারে এই লক্ষ্যে সরকারের পাশাপাশি নানা বেসরকারী সংগঠন কাজ করে যাচ্ছে । সবার সম্মিলিত চেষ্টায় অনেকাংশে কমে গেছে কন্যাশিশুর প্রতি অনীহা এবং বাল্য বিবাহের মত সামাজিক অভিশাপ । তবু যেতে হবে এখনো অনেক দূর । এমডিজিতে বাংলাদেশ যেমন সাফল্য অর্জন করেছে, তেমনি জাতিসংঘ ঘোষিত এসডিজিতেও সাফল্যযাত্রা অব্যাহত থাকবে বলে আশাবাদ বাংলাদেশ সরকারের ।

বাংলাদেশের প্রধানতম সমস্যা অতিরিক্ত জনসংখ্যা । নিয়ন্ত্রণ অপরিহার্য । পাঠ্যবইয়ের পাশাপাশি খোলামেলা আলোচনার মাধ্যমে যেমন বাস্তবায়ন সম্ভব পরিকল্পিত পরিবার তেমনি সম্ভব এইডস সহ, বিভিন্ন যৌন রোগ এবং বয়:সন্ধির নানা সমস্যা এড়িয়ে চলা । ধর্মীয় গোড়ামি, কুসংস্কার এখন সমাজে উল্লেখযোগ্য হারে কমে গেছে । তাই তরুনরা আগের তুলনায় অনেক বেশি সচেতন এই বিষয়লোতে ।
শাহরিন খান এই বিষয়টিতে বললেন, নতুন পাঠ্যক্রমে ষষ্ঠ শ্রেণী থেকেই শিক্ষার্থীদের জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রন কেন দরকার, পরিবার পরিকল্পনার সুফল কি কি এবং বয়:সন্ধির সমস্যাগুলো এবং সেসব মোকাবেলার উপায় নিয়ে অনেক বেশী তথ্যবহুল ও খোলামেলা আলোচনা করা হয় পরিবার এবং বিদ্যালয়ে যার প্রভাব ইতোমধ্যে আমাদের সমাজে দৃশ্যমান ।

আমরা সকলে মিলে গড়ে তুলব এমন একটি সমাজ যেখানে একটি শিশু, একজন শিক্ষার্থী কিংবা একজন মানুষ নিজেকে ভাল মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করবে এবং কাজ করবে পৃথিবীর সকলের জন্য ।


শরীফ উল হক, ঢাকা রিপোর্টিং সেন্টার । সহযোগিতায়- ইউএসআইডি এবং ভয়েস অব আমেরিকা ।

XS
SM
MD
LG