অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

এইডস রোগ চিকিৎসায় বিশাল বাধা হচ্ছে লোকলজ্জা


এইডস রোগের চিকিতসায় অগ্রগতি হওয়া সত্বেও এর চিকিতসা পাওয়ার ক্ষেত্রে যে বিশাল বাধা কাজ করছে তা হচ্ছে লোকলজ্জা। এইডস রোগ অনেক দেশে কলংকজনক বলে বিবেচনা করা হয়।

এইডস রোগ যখন প্রথম শুরুর হয় তখন থেকে এই রোগকে মানুষ লজ্জা জনক বলে মনে করত আর সেই ধারণা এখনও রয়ে গিয়েছে । ১৯৮০র দশকে যখন এই রোগের ভাইরাসের কথা প্রথম প্রকাশ পায় তখন সমকামী এবং সূঁচ ব্যবহার করে মাদক গ্রহণ কারীরা দুই দলের মানুষ যারা তাদের নিজের অবস্থার জন্য নিজেরাই লজ্জিত, তারা যেন হটাত করেই বিচ্ছিন্ন হয়ে পরে।

তবে ৩০ বছর পরে এইডস সম্পর্কে ধারণা বদলেছে। এখন এইচআইভিতে সংক্রমিত রোগী শুধুমাত্র সমকামীরা নন বরং পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে যে বেশীর ভাগ রোগী হচ্ছে আফ্রিকার মহিলারা।

ভয়েস অব আমেরিকার স্বল্পদৈর্ঘ একটি প্রমান্য চিত্র “লিভিং ইন দা শেডো” ছবিতে দেখা গিয়েছে এইডস রোগ সম্পর্কে জানতে পারার পরেও এ সম্পর্রকে বদ্ধমূল যে লজ্জাজনক ধারনা তা কিন্তু যায়নী বরং তা এখনও বিরাজ করছে।

ক্যাম্বডিয়া, নাইজেরিয়া এবং উগান্ডা পর্যন্ত পরিস্থিতি একই রকম। ন্যাশনাল ইনিষ্টিটিউট অফ এলার্জী এবং ইনফ্যাক্সাস ডিজিজ-এর চিকিতসক এন্থনী ফাউসি বললেন, উন্নয়নশীল দেশগুলোতেও যেমন কানাডা এবং আমেরিকাও বর্তমানে অর্থাৎ ২০১৪সালে এই পরিস্থিতি একই রকম রয়েছে।

তিনি বললেন, “আমেরিকা একটি উন্নয়নশীল দেশ এখানে এখনও এসম্পর্কে একটা কলংকজনক অবস্থা যেন জড়িত। যেমনটি আমরা চলচিত্রে দেখে থাকি, এমন কি, আমি যে শহরে বাস করি সেখানেও সেই এই অবস্থা দেখছি। কিছু কিছু ক্ষেত্রে হয়তোবা সেটা একটু কম। এই কারনেই মানুষ সঠিক সময়ে, সঠিক চিকিতসা পাচ্ছে না। আর এর ফলে সমস্যা দেখা দিচ্ছে।”

নাইজেরিয়ায় সমকামীতা নিষিদ্ধ। সমকামী সক্রিয়বাদী কর্মী আফানী কেলি অরাজুলিকে এইডস রোগ এবং সমকামীদের অত্যন্ত করুণ চিত্র তুলে ধরে্ন। তিনি বলেন, “আমরা নাইজেরিয়াতে যেসব কাজ করছি সেক্ষেত্রে আমরা সেভাবে বসবাস করছি তা অবিসাষ্য রকমের বিস্ময়কর। আমরা সব দুঃখকষ্ঠ সহ্য করে বেঁচে আছি যাতে ঐ মানুগুলো স্বাস্থ্য পরিসেবা এবং সামাজিক ন্যায় বিচার পায়।”

এইডস রোগ সম্পর্কে সে লজ্জাজনক ধারণা থাকার ফলে শুধু যে রোগীদের ক্ষতি হচ্ছে তা নয়, যারা এর চিকিতসা দিয়ে থাকেন তারাও ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে্ন। ডঃ জুলিও মোন্টানের এই পেশায় কয়েক দশক ধরে কাজ করছেন তিনি বলেন এই রোগ নিয়ে যে নিন্দা-লজ্জা আছে তাতে করে এই রোগ সারানোর ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি লাভে তা বাধাগ্রস্থ হতে পারে। তিনি বলেন, এর একটি উদাহরণ হচ্ছে ক্যানাডার ভ্যাঙ্কুভারে মাদক গ্রহনকারীদের জন্যে একটি স্থান স্থাপন করা যেখান থেকে তারা নিরাপদ সূঁচ নিতে পারবে। তবে এই কাজের জন্য সরকারের তহবিল পাওয়া কঠিন।

তিনি বলেন, একজন হ্রিদরোগ বিশেষজ্ঞকে কেউ প্রশ্ন করে না কেন তিনি এই পেশায় আছেন? কিন্তু একজন এইডস রোগ বিশেষজ্ঞকে অহরহই জিজ্ঞাসা করা হয় যে কেন তিনি এই কাজ করছেন? এমনও বলা হয় যারা মাদক গ্রহন করে তাদের মমতা দেখানোরও দরকার কি? এটা যেন এমন, একজন হ্রিদরোগ চিকিতসক তার কাজের প্রতি ভিষণ ভাললাগা থাকাটা স্বাভাবিক কিন্তু এইডস রোগ চিকিতসকের তেমনটি থাকতে নেই। আমাদের সমাজের এইসব বদ্ধমুল ধরণার জন্য মারাত্মক এই রোগের বিরুদ্ধে লড়াইএ অগ্রগতি বাধাগ্রস্থ হচ্ছে।

XS
SM
MD
LG