অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

প্রেসিডেন্ট ওবামার রাষ্ট্রীয় বিষয়ে ভাষণ সম্পর্কে ড মেহনাজ মোমিনের বিশ্লেষণ


স্থানীয় সময়ে গত রাতে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা রাষ্ট্রীয় পরিস্থিতি বিষয়ে কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনের ভাষণে অভ্যন্তরীণ এবং অন্তর্জাতিক বিভিন্ন বিষয়ে বিস্তারিত আলোকপাত করেন , যুক্তরাষ্ট্রের নীতি তুলে ধরেন এবং এ ব্যাপারে তাঁর আগামি দিনের পরিকল্পনা ও উপস্থাপন করেন। গতকাল প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা যে ভাষণ দিয়েছেন তাতে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের জন্যে পরিস্কার আশার বার্তা শুনিয়েছেন। ভাষণের গোড়াতেই তিনি বলেছেন যে আমরা এই শতকের যে ১৫ বছর পেরিয়ে এসছি , যার সূচনা হয়েছিল আমদেরই উপকুলে সন্ত্রাস দিয়ে , যার ফলে নতুন প্রজন্মকে দুটি দীর্ঘ এবং ব্যয়বহুল লড়াইয়ে লিপ্ত হতে হয়েছে এবং যুক্তরাষ্ট্র সহ গোটা বিশ্ব এক মন্দায় আক্রান্ত হয়েছিল। তবে তিনি বলেন যে আজ প্রেক্ষাপট বদলে গেছে। তাঁর কথায় সংকটের ছায়া সরে গেছে । প্রেসিডেন্ট অগ্রগতির কথা বলছেন , মন্দা থেকে বেরিয়ে আসার বাস্তবতা তুলে ধরছেন , এবং আমরা জানি যে সাম্প্রতিক সময়ে তাঁর জনপ্রিযতা বৃদ্ধি পেয়েছে । অন্যদিকে রিপাবলিকান সেনেটর কোরী গার্ডনার তাঁর প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন যে গত ছ বছরে , তাঁর কথায় পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে।

অভ্যন্তরীণ বিষয়ে প্রেসিডেন্ট যে সব প্রস্তাব কংগ্রেসের সামনে আনতে চাইছেন , যেমন অত্যন্ত ধনী ব্যক্তিদের কর বৃদ্ধি , বিনা বেতনে কমিউনিটি কলেজে শিক্ষা ব্যবস্থা চালু করা , এ সব বিষয়ে তাঁর প্রস্তাব ও পরিকল্পনা রিপাবলিকান সংখ্যাগরিষ্ঠ কংগ্রেসের উভয় কক্ষে কতটাই বা সমর্থন পেতে পারে ?

প্রেসিডেন্ট ওবামা গত রাতে যুক্তরাষ্ট্রের কুটনীতি এবং সমরনীতি দুটোর প্রতিই বিস্তারিত আলোকপাত করেছেন । তিনি বলেন যে সামরিক ব্যবস্থা এবং কুটনীতির সমন্বয়ে ইরাক ও সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেট উগ্রবাদীদের বিরুদ্ধে লড়াই সাফল্য এনেছে। তবে তিনি বলেন যে এটি একটি দীর্ঘ মেয়াদি বিষয়। তিনি স্পষ্টতই আইসিলের বিরুদ্ধে শক্তি ব্যবহার করার অনুমোদন চান। তবে প্রতিনিধি পরিষদের ডেমক্র্যাটিক সদস্য ডেভিড স্কট মনে করছেন যে উগ্রবাদী ইসলামি সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে প্রেসিডেন্টের যথেষ্ট কড়া পদক্ষেপ নিতে পারেননি । এ নিয়েও বিতর্কের অবকাশ রয়ে গেছে

ইরান প্রসঙ্গে প্রেসিডেন্ট পরিস্কার করেই বলেছেন যে তিনি ইরানের বিরুদ্ধে নতুন কোন নিষেধাজ্ঞা আরোপকে সমর্থন করবেন না কারণ এই মূহুর্তে ইরানের সঙ্গে তার পারমানবিক কর্মসূচি নিয়ে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে আলাপ আলোচনা চলছে, তবে রিপাবলিকান সেনেটর গার্ডনার মনে করেন যে এরই মধ্যে ইরানকে তার মতে বেশি ছাড় দেয়া হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন। এ নিয়েই Texas A & M International University ‘Social Science এর সহযোগী অধ্যাপক এবং রাজনৈতিক বিশ্লেষক মেনহাজ মোমিনের সঙ্গে কথা আনিস আহমেদ :

XS
SM
MD
LG