অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বিন লাদেনের সঙ্গে সম্পৃক্ততার কথা পাকিস্তান অস্বীকার করেছে


পাকিস্তানের আবতাবাদে ওসামা বিন লাদেনের বাড়ির সামনে পাকিস্তানের সেনাবাহিনী ও পুলিশ ।

পাকিস্তানের আবতাবাদে ওসামা বিন লাদেনের বাড়ির সামনে পাকিস্তানের সেনাবাহিনী ও পুলিশ ।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী এই দাবি নাকচ করে দিয়েছেন যে , যুক্তরাষ্টের সামরিক অভিযানে ওসামা বিন লাদেন নিহত হওয়ায় যে তাঁর দেশ আল ক্বায়দা নেতাকে পাকিস্তানে তার গোপন আস্তনায় থাকার ব্যাপারে হয় সাহায্য করেছে , নয়ত এ ব্যাপারে অযোগ্যতার প্রমাণ রেখেছে।

আজ পাকিস্তানের সংসদে দেওয়া এক ভাষণে ইউসুফ রাজা গিলানি এ ধরণের অভিযোগকে উদ্ভট বলে অবিহিত করেন। তিনি বলেন যে পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থাসহ , পাকিস্তানের কর্তৃপক্ষ আল ক্বায়দার সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিল , এমনটি ভাবা কারও পক্ষেই তাঁর কথায় কুটিল চিন্তা। তিনি সামরিক বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থার পক্ষে বক্তব্য রেখে বলেন যে তারা জাতীয় সম্পদ।

তিনি আরও বলেন যে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ আমাদের নিজেদেরও জাতীয় অগ্রাধিকারের বিষয়। আমাদের এই পবিত্রভুমি থেকে সন্ত্রাসবাদকে নির্মূল করার ব্যাপারে জাতি একতাবদ্ধ। প্রধান মন্ত্রী গিলানি যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে দৃঢ় সম্পর্ক বজায় রাখার কথা বলে , পাকিস্তানের ভূমি থেকে কোন এক তরফা কর্মকান্ড চালানোর ব্যাপারে হুশিয়ার করে দেন ।

তিনি বলেন এ নিয়ে কারও ভুল সিদ্ধান্তে পৌছুনো উচিৎ নয়। পাকিস্তানের কৌশলগত ভাবে গুরুত্বপূর্ণ সম্পদের ওপর প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষ যে কোন আক্রমণের অনুরূপ জবাব দেয়া হবে। পুর্ণ শক্তি দিয়ে পাল্টা জবাব দেওয়ার অধিকার পাকিস্তানের আছে। বিন লাদেন পাকিস্তানে কী ভাবে গোপন আস্তানা গড়ে তুলেছিল সে ব্যাপারে মি গিলানি তদন্তের আদেশ দিয়েছেন। একজন শীর্ষ জেনারেল এই তদন্দদলের নের্তৃত্ব দেবেন। তিনি আল ক্বায়দার নেতার মৃত্যুকে ন্যায় বিচার বলে উল্লেখ করেন। এ দিকে নাওয়াজ শরিফ নের্তৃত্বাধীন পাকিস্তানের প্রধান বিরোধীদল যুক্তরাষ্ট্রের ঐ অভিযানকে পাকিস্তানের সার্বভোমত্ব লংঘন বলে এর নিন্দে করেছে। এ দিকে বিন লাদেনের বিষয়টাকে যে দেখা হয়েছে সে সম্পর্কে পাকিস্তানের সেনা প্রধান জেনারেল আশফাক কায়ানি পাকিস্তান সরকারের সমালোচনা করেছেন।

XS
SM
MD
LG