অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রীদের মধ্যে বৈঠক অনুষ্ঠিত


দ্বিপাক্ষিক বৈঠক শেষে হিলারি ক্লিন্টন ও দীপুমণি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দিতে বেরিয়ে আসছেন

দ্বিপাক্ষিক বৈঠক শেষে হিলারি ক্লিন্টন ও দীপুমণি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দিতে বেরিয়ে আসছেন

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিণ্টন ও বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মণি বুধবার ওয়াশিংটনে এক বৈঠকে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরো মজবুত করার ওপর জোর দিয়েছেন।

বৈঠেকর আগেই ক্লিন্টন বলেন যে দারিদ্র বিমোচনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সরকারের প্রয়াস, ওবামা প্রশাসন আগ্রহের সঙ্গেই লক্ষ্য করছে। তিনি বলেন যে দুটি দেশের মধ্যে সন্ত্রাস বিরোধী বিষয়ে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতার প্রশংসা করে ওয়াশিংটন এবং আন্তর্জাতিক সংহতি ও বৃহত্তর অর্থনতিক সুযোগ সুবিধা বাড়িয়ে তুলতে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশ এবং ঐ অঞ্চলের অন্যান্য দেশের সঙ্গে একত্রে কাজ করতে চায়।

ক্লিন্টন বাংলাদেশ সরকারকে সংবাদপত্রের স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে বলেন এবং আশা প্রকাশ করেন যে দারিদ্র বিমোচনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছে যে গ্রামীন ব্যাঙ্ক , তা যেন নিজের কাজ চালিয়ে যেতে পারে।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মণি বলেন যে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তার দেশের খুবই কার্যকর সহযোগিতার সম্পর্ক রয়েছে এবং দু পক্ষ জলবায়ু পরিবর্তন , দারিদ্র বিমোচন এবং নারীর ক্ষমতায়ন সহ সব বিষয়ে ঘনিষ্ঠ ভাবে কাজ করছে।

ডা দীপুমণি আরও বলেন যে ধর্মনিরপেক্ষ গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র বাংলাদেশ যেখানে মুক্ত ও শক্তিশালি সংবাদ মাধ্যম রয়েছে এবং অত্যন্ত সক্রিয় সুশীল সমাজ রয়েছে , সেই দেশ য়ুক্তরাষ্ট্রের মতো দেশগুলির সঙ্গে কার্যকর সহযোগিতা চায়। তিনি যুক্তরাষ্ট্রকে ভাল বন্ধু ও সহযোগি বলে উল্লেখ করেন। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এই বৈঠক সম্পর্কে কিছু ক্ষণ আগে যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আকরামুল কাদের আমাদের জানালেন :

XS
SM
MD
LG