অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

মিশরে যুগান্তকারী নির্বাচনে বিপুল সংখ্যক ভোটার ভোট দিচ্ছেন।


মিশরে যুগান্তকারী নির্বাচনে বিপুল সংখ্যক ভোটার ভোট দিচ্ছেন।

মিশরে যুগান্তকারী নির্বাচনে বিপুল সংখ্যক ভোটার ভোট দিচ্ছেন।

ফেব্রুয়ারি মাসে গণ অভূত্থানে প্রেসিডেন্ট হোসনে মুবারকের তিরিশ বছরের শাসনের অবসানের পর এই প্রথম মিশরের মানুষ সংসদ নির্বাচনে ভোট দিচ্ছে।

আজ সোমবার ভোট কেন্দ্র খোলার আগেই ভোটদাতারা দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়েছিল। অনেকেই বলেছে যে তারা এই প্রথম ভোট দিচ্ছে। দুপুর নাগাদ নির্বাচনে কোন কারচুপি কিংবা সহিংসতার খবর পাওয়া যায়নি। মিশরের হাজার হাজার বিচারক এই প্রক্রিয়ার দিকে নজরদারী করছেন।

সংসদের নিম্নকক্ষের সদস্য নির্বাচনের জন্য পর্যায়ক্রমে এই ভোট শুরু হয়েছে কায়রো এবং আলেকাজান্দ্রিয়ার মতো প্রধান শহরে এবং আরও সাতটি প্রদেশে। ঐ সব অঞ্চলের ফিরতি নির্বাচন হবার কথা ৫ই ডিসেম্বর।

মিশরের ২৭টি প্রদেশে তিন পর্যায়ে ভোট গ্রহণ করা হচ্ছে যা সম্পন্ন হবার কথা জানুয়ারী মাসে। এর পর উচ্চ কক্ষের নির্বাচন শুরু হবে যা কী না সম্পন্ন হবে মার্চ মাসে এবং তার পরই পরিষদ নতুন সংবিধান রচনা করবে।

১৯৫০ সাল থেকে সরকারী ভাবে নিষিদ্ধ মুসলিম ব্রাদারহুড এবার নির্বাচনে আরো জোরালো ভুমিকা গ্রহণ করবে । একটি কর্তৃত্ববাদী ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র হিসেবে দেশটিতে গত ছয় দশক ধরে সামরিক বাহিনী পরিচালনা করে এসছে ।

তবে মিশরের ক্ষমতাসীন জেনারেলরা যে একটা জটিল নির্বাচনী পদ্ধতি চালু করেছে তার কারণৈ অনেকে আশংকা করছেন যে আইন পরিষদ বিশ্বাসযোগ্যতা। সেনাবাহিনীর জেনারেলরা পরিস্কার ভাবেই বলেছেন যে ক্ষমতাসীন সামরিক পরিষদ নির্বাচিত এই নতুন সংসদের কোন অধিকার থাকবেনা

XS
SM
MD
LG