অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

অলিম্পিকের প্রস্তুতিতে আমেরিকার দৌড়ঝাঁপের মাঠের খবর

  • রোকেয়া হায়দার

গ্রীসের প্রাচীন শহর অলিম্পিয়ায় ২ হাজার ৬শো বছর আগের আএরা মন্দিরের সামনে জ্বালানো হলো ২০১২ সালের অলিম্পিক মশাল। এই মশাল এখন চিরাচরিত প্রথায় গ্রীসের বিভিন্ন শহরের মধ্যে দিয়ে ১৮শো মাইল পথ বেয়ে এগিয়ে যাবে বৃটেনের পথে।

আর ২০১২ সালের লন্ডন অলিম্পিকের ক্ষণগনণা শুরু হয়ে গেছে ।

দেশে দেশে অংশগ্রহণকারী দলগুলোর অলিম্পিকের প্রস্তুতি এগিয়ে চলেছে ।

আজ থেকে প্রতি শুক্রবার আমরা আপনাদের সেই আয়োজনের খবর শোনাবো ।

আজ আমেরিকার দৌড়ঝাঁপের মাঠের কিছু বিবরণ দিয়ে শুরু করছি ।

আর এই অলিম্পিক প্রস্তুতি সমাচার আপনাদের শোনাচ্ছেন রোকেয়া হায়দার

ফিলাডেলফিয়ায় প্রতিবছর আয়োজন করা হয় দৌড়ের মাঠের অতি পুরাতন এক প্রতিযোগিতা পেন রীলে। এবার এপ্রিলের শেষ সপ্তাহের এই ১১৮তম বার্ষিক প্রতিযোগিতায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশের কেলোয়াড়রা যোগ দেন। যেমন ১শো মিটার দৌড়ে চ্যাম্পিয়ান আমেরিকার কারমালিটা জেতুর জন্য তার ভক্তদের সামনে দৌড়ানো এক দারুণ অনুভুতি ছিল। কারমালিটা বলেন, ‘আমি গত ২/৩ বছর ধরে, ওই কোনায় দর্শক সারি থেকে তাদের ধ্বনি শুনতে ভালবাসি। তারা বলেন – কারমালিটা!!! তারা চিত্কার করে আমার নাম বলেন। এবং আমি তাদের বেশ কয়েক বছর ধরে দেখছি’।

এবছর পেন রীলেতে ২১টি দেশ যোগ দেয়। যাদের মধ্যে ছিলেন জামাইকা, বাহামা, নাইজেরিয়া, কেনিয়া, সৌদি আরব ও রাশিয়া। তিনদিনের এই প্রতিযোগিতায় স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রী থেকে নিয়ে পেশাদার খেলোয়াড়রাও দর্শক সারিতে যোগ দেয়।

এবার ডগ হ্যাটলার তার হাইস্কুলের ছেলেকেই শুধু দেখতে আসেন নি, নামী দামী প্রতিযোগীদের দেখার আগ্রহও কম ছিল না। তিনি বলেন, আপনি যদি দৌড়ঝাঁপ পছন্দ করেন, আপনি প্রায় সবাইকেই এখানে দেখতে পাবেন। বিশ্বের সেরা মহিলা-পুরুষ খেলোয়াড়কে দেখা যায়। সারা বিশ্বের ছোঁয়া পাওয়া যায়’।

জুলাই মাসে লণ্ডন অলিম্পিকের জন্য অংশগ্রহণকারীদের যেন একটা পরীক্ষা হয়ে যায় এখানে। বেজিং অলিম্পিকে ৪শো মিটার রীলে ও ৪শো মিটার হার্ডলসে স্বর্ণপদক জয়ী আমরিকান এ্যাঞ্জেলো টেলার মনে করেন দক্ষতা যাচাই করার একটা ভাল সুযোগ পাওয়া যায় এখানে, ‘আপনাকে মনে রাখতে হবে নিজেকে ঠিকভাবে প্রস্তুত করতে হবে, সঠিক সময়টিতে অর্থাত্ অলিম্পিকের সময়ে সবাই তাদের যোগ্যতায় এক্কেবারে ফিট থাকবে’।

২০০৮ সালে ১শো এবং ৪শো মিটার অলিম্পিক রীলেতে সোনার পদকজয়ী দলের দৌড়বিদ এ্যালিসান ফেলিক্স বললেন, ‘আমি দুটি রীলেতেই ভাল বোধ করেছি। কোনটা বেশী ভাল ছিল বলতে পারি না তবে আমরা যে ভাল ফলাফল করেছিলাম সেটাই খুশীর কথা’।

এইভাবে নতুন উত্সাহ উদ্দীপনা আর সম্ভাবনার আশায় দিন গুনছেন অলিম্পিয়ানরা ।

XS
SM
MD
LG