অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

হ্যালো ওয়াশিংটন : নতুন প্রজন্মের ভাবনায় বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ

  • আনিস আহমেদ

হ্যালো ওয়াশিংটন : নতুন প্রজন্মের ভাবনায় বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ

হ্যালো ওয়াশিংটন : নতুন প্রজন্মের ভাবনায় বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ

১৪ই ডিসেম্বর, বাংলাদেশে শহীদ বুদ্ধি জীবি দিবস। আজ থেকে চল্লিশ বছর আগে যারা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময়ে দেশের স্বাধীনতার জন্যে আত্মাহুতি দিয়েছেন , তাঁদের সকলের আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা এই কল ইন শো শুরু হলো , যার বিষয় নতুন প্রজন্মের ভাবনায় বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ ।

শ্রোতারা সরাসরি আমাদের ফোন করে আমাদের অতিথিদের কাছে প্রশ্ন করেছেন , প্রশ্ন ও মন্তব্য করেছেন ফেইস বুক এ ও ।

বাংলাদেশে মুক্তিযদ্ধের মূল্যায়ন , এর বস্তুনিষ্ঠ ইতিহাসের প্রতি শ্রদ্ধা এবং সেই ইতিহাসকে অনুপ্রেরনার উৎস হিসেবে গ্রহণ করে সামনে এগিয়ে যাবার প্রণোদনা , এ সব কিছুই আজকের আলোচনায় উঠে এসছে, শ্রোতাদের জিজ্ঞাসায় এবং আমাদের অতিথি প্যানেলিস্টদের জবাবে। মুক্তিযুদ্ধের ৪০ বছরের এই সময়ের মধ্যে নতুন প্রজন্মের ব্যাপ্তি অনেকখানি। আর এখনতো আমরা জানি যে বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার অর্ধেকের ও বয়স ২৫ বছরের কম। সেটি বাংলাদেশের জন্যে যেমন আশার কথা , তেমনি এটি লক্ষ্য করার বিষয় যে এই নতুন প্রজন্ম কতখানি জানেন মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে এবং কি-ই জানেন।

আর এই সব প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন আমাদের অতিথিরা । টেলি –সম্মিলিনী লাইনে আমাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন , ঢাকা থেকে তিন জন অতিথি । রয়েছেন বিশিষ্ট লেখক , নিবন্ধকার ও বিশ্লেষক , ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ড সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম । রয়েছেন বিশিষ্ট আইনবিদ , ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যলয়ের সহযোগি অধ্যাপক ব্যারিস্টার ড তুরিন আফরোজ। আর রয়েছেন শহীদ আলিম চৌধুরীর কন্যা , চক্ষু বিশেষজ্ঞ , বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব চিকিৎসা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক ডা নুজহাত চৌধুরী শম্পা

আর ফেইসবুকে প্রশ্ন মন্তব্যের দিকে লক্ষ্য রেখেছেন , তাহিরা কিবরিয়া

আমাদের অতিথি প্যানেলিস্টরা এই আস্থা প্রকাশ করেন যে এখনকার প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সম্পর্কে অনেক বেশি সচেতন। তারা বলেন যে ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান এবং পরে চার জাতীয় নেতার হত্যার পর এমন এক অন্ধকা্র সময় এসছিল যখন মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করা হয়েছে। ঐ তখনকার প্রজন্ম বিভ্রান্ত হয়েছে , বিচলিত হয়েছে। কিন্তু এর পর আবার একটা সময় এসছে যখন ইতিাসের এই কালো মেঘ কেটে গেছে। তারা আশা প্রকাশ করেন যে মুক্তিযুদ্ধের বস্তুনিষ্ঠ ইতিহাসই চূড়ান্ত বিচারে টিকে থাকবে। তারা বলেন রাজনীতিকরা ইতিহাস নির্মাণ করেন না , নির্ণয় করেন না । জনগণই তা করে।

XS
SM
MD
LG