অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

চীন বাংলাদেশকে ৪০ কোটি ইউয়ান অনুদান দিবে

  • আমির খসরু

বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সহযোগিতা সংক্রান্ত এক চুক্তির অধীনে বেজিংয়ের কাছ থেকে ৪০ কোটি ইউয়ান অনুদান পাবে। বাংলাদেশ ও চীন এ ব্যাপারে সোমবার একটি চুক্তি স্বাক্ষর করে।
বাসস পরিবেশিত এক সংবাদে জানা গেছে চীনের বাণিজ্য বিষয়ক ভাইস মিনিস্টার চান জিয়ান ও বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া নিজ নিজ দেশের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

সফররত চীনের ভাইস প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে সফররত চীনের ভাইস প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে আনুষ্ঠানিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।
বৈঠক শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি সাংবাদিকদের বলেন, বৈঠককালে দু’নেতা বাংলাদেশ ও চীনের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য, বিনিয়োগ, শিক্ষা, সংস্কৃতি ও প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে সহযোগিতার ব্যাপারে ফলপ্রসূ আলোচনা করেন।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী চীনা ভাইস প্রেসিডেন্টকে স্বাগত জানাচ্ছেন।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী চীনা ভাইস প্রেসিডেন্টকে স্বাগত জানাচ্ছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ ও চীনের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আরো জোরদার হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেছেন, বন্ধুপ্রতীম দু’দেশের মধ্যে সহযোগিতা উভয় দেশের জনগণের জন্যে মঙ্গল বয়ে আনবে।
প্রধানমন্ত্রী আজ রাতে হোটেল সোনারগাঁওয়ে চীনের ভাইস প্রেসিডেন্ট শি জিন পিং-এর সম্মানে আয়োজিত এক নৈশভোজে বক্তৃতাকালে একথা বলেন।
চীন ও বাংলাদেশের মধ্যে গভীর বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, এ সম্পর্কের ভিত্তি হচ্ছে আস্থা, সমতা, পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ এবং দু’দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ না করার নীতি। আমরা এক চীন নীতির প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

সফররত চীনের ভাইস প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বলেছেন, বাংলাদেশের মতো স& প্রতিবেশি এবং বন্ধুপ্রতিম দেশ পেয়ে চীনের জনগণ গর্বিত।
সোমবার রাতে হোটেল সোনারগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার দেয়া নৈশভোজে তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের অগ্রগতিতে চীনের সরকার ও জনগণ আনন্দিত। আমরা বাংলাদেশের আরো উন্নতি ও সমৃদ্ধি কামনা করি।
তিনি আজ বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তাঁর ফলপ্রসূ বৈঠকের কথা উল্লেখ করে বলেন, বাংলাদেশের জনগণের বন্ধুত্ব আমি অনুভব করতে পারছি। আতিথেয়তার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, এ নৈশভোজের মধ্য দিয়ে চীন ও বাংলাদেশের মধ্যে সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় হবে।
চীনের ভাইস প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশ এবং চীনের দীর্ঘ দিনের সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে ড. অতীশ দীপঙ্করের অবদানের কথা শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন। চীনা ভাইস পেসিডেন্টের বাংলাদেশ সফর সম্পর্কে পুর্ববর্তী সংবাদটি দিয়েছেন আমাদের সংবাদদাতা আমির খসরু

XS
SM
MD
LG