অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মধ্যপ্রাচ্য সফরের মূল্যায়ন করলেন রাজনৈতিক বিশ্লেষক ডঃ জিল্লুর রহমান খান

  • রোকেয়া হায়দার

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারী ক্লিন্টন ও ফিলিস্তিনী প্রধানমন্ত্রী সালাম ফায়াদ

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারী ক্লিন্টন ও ফিলিস্তিনী প্রধানমন্ত্রী সালাম ফায়াদ

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রী হিলারী ক্লিন্টন সিরিয়া পরিস্থিতি, মিশরে রাজনৈতিক উত্তরণ, ইরানের পারমানবিক কর্মসুচী বিভিন্ন বিষয় নিযে মধ্যপ্রাচ্যে ইস্রায়েলী নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করেন, এবং ফিলিস্তিনী প্রধানমন্ত্রী সালাম ফায়াদের সঙ্গেও সাক্ষাত করেন। এর আগে পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্যারিসে ফিলসি্তিনী প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের সঙ্গেও বৈঠক করেন।

আমাদের সঙ্গে এক সাক্ষাতকারে হিলারী ক্লিন্টনের মধ্যপ্রাচ্য সফর প্রসঙ্গে বক্তব্য রাখেন উইসকনসিন বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিভাগের প্রাক্তন প্রধান ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক ডঃ জিল্লুর রহমান খান।

স্টুডিও থেকে তার সঙ্গে কথা বলেন রোকেয়া হায়দার।

হিলারী ক্লিন্টন বলেছেন, তিনি মধ্যপ্রাচ্যে এক বিরাট পরিবর্তনের মূহুর্তে ওই অঞ্চল সফর করছেন। যদিও বর্তমানে অনিশ্চয়তা বিরাজ করছে, তবে এরই মাঝে তিনি বিরাট সুযোগের সম্ভাবনাও দেখতে পাচ্ছেন । আপনার মন্তব্য কি? এর জবাবে ডঃ জিল্লুর রহমান খান বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমার কিছুটা দ্বিধা থাকলেও, ইন জেনারেল আমি মনে করি হিলারী ক্লিন্টন ইস অন দ্য রাইট পাথ’।

আর সিরিয়ার সংঘর্ষ কি বিরাট এক আন্তর্জাতিক যুদ্ধের রূপ নিতে পারে? ডঃ খান বলেন, তিনি সেটা মনে করেন না।

ইরান যাতে পারমানবিক অস্ত্র হস্তগত না করতে পারে সেই লক্ষ্যে যুক্তরাষ্ট্র তার সকল ক্ষমতা কাজে লাগাবে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্লিন্টনের এই বক্তব্য প্রসঙ্গে ডঃ খানের মন্তব্য হচ্ছে, ‘ভারতের বাজপেয়ী একবার বলেছিলেন, নিউক্লিয়ার এ্যাপারথাইড। কারণ সেপারেট বাট ইকুয়াল, এটা হয় না। সার্বভৌমত্বে যদি আপনি বিশ্বাস করেন, প্রত্যেকটা দেশেরই স্বাধীনতা আছে। আমি ইরানীদের সঙ্গে কথা বলেছি, তারা আমেরিকানদের বিরাট সমর্থন করে, কিন্তু তারা মনে করেন আমেরিকান সরকারের এই পলিসি সঠিক নয়’।

XS
SM
MD
LG