অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

২০০৪ সালে এ্যাথেন্স অলিম্পিকের অর্থায়ন

  • Shegoftah Queen

লন্ডন অলিম্পিক এগিয়ে আসছে, কিন্তু ২০০৪ সালে এ্যাথেন্স অলিম্পিকের আয়োজনের যে অর্থ ব্যয় হয়, সেখান থেকেই যেন গ্রীসের বর্তমান অর্থনৈতিক মন্দার শুরু বা তা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। লণ্ডনের এ বিষয়ে সতর্ক থাকা উচিত।

আজকের অলিম্পিক সমাচারে সে কথাই আলোচনা করছেন রোকেয়া হায়দার।

২০০৪ সালে আদি অলিম্পিক নগরী যেমন রমারমা হয়ে উঠেছিল, এখন যেন তা ধীরে ধীরে মিলিয়ে যাচ্ছে। অলিম্পিক পার্কের কথাই ধরুন না কেন – এজিয়ান সাগরের তীরে পাখীর কলকাকলিতে মুখরিত অলিম্পিক পার্ক। কখনও দূর থেকে ভেসে আসে কোন জাহাজের শব্দ। কোথাও যানবাহন নেই, মানুষজনও ধারে কাছে তেমন দেখা যায় না। আট বছর আগের সেই জমজমাট ছবি আর চোখে পড়ে না। পার্কের চারপাশের বেস্টনীতে মরচা পড়েছে।

নৌকা বাইচের স্থানটি লক্ষ লক্ষ ডলার খরচ করে তৈরী করা হয়েছিল, মানুষের তৈরী হ্রদ থেকে পানি সরবরাহ করা হয়েছিল। সেই হ্রদ এখন শুকিয়ে গেছে। ম্যানোলিস ট্রিকাস হলেন এথেন্সের উপকণ্ঠে হেলেনিকন জনপদের কাউন্সিলার। তিনি এখন ২০০৪ সালের অপচয় স্মরণ করে দুঃখ প্রকাশ করেন – ‘তিনি বললেন, অলিম্পিকের সেই চমককে ধরে রাখার জন্য, বিজ্ঞাপনের জন্য, বিপুল অর্থ সম্পদ অপচয় করা হয়েছে। দূর্ভাগ্য, গ্রীসের জন্য সেই অলিম্পিক এক বিপর্যয় ডেকে আনে’।

আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির প্রধান জাঁক রোগ্যা গ্রীসের এক পত্রিকাকে বলেছেন, এথেন্স অলিম্পিক গ্রীসের ঋণভারকে আরও বাড়িযে তুলেছে। সরকার অনুমান করেছিলেন গেমসের জন্য খরচ হবে ১শো ১০ কোটি ডলার।

নতুন নতুন অনেক স্থাপনার মধ্যে ছিল নতুন মেট্রো রেল ও ট্রাম।

তবে ২০০৪ সালের গেমসের ব্যয়বরাদ্দের হিসাব করার সময় মেট্রো রেলের খরচের কথা কেউ চিন্তা করেনি। সেইসঙ্গে ছিল নতুন বিমান বন্দর আর মহাসড়ক।

গ্রীক-আমেরিকান লুইসা শার্প এ্যাথেন্স গেমসে কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি বলেন, অলিম্পিকের স্থাপনাগুলোকে রক্ষা করা উচিত। তার কথা –‘এইসব স্থাপনা খুবই সুন্দর, ব্যয়বহুল ছিল, এবং সত্যিই ভাবতে কষ্ট হয় যে কেউ এইসব স্থাপনাকে কাজে লাগিয়ে ব্যবহার করে কোনভাবে অর্থ উপায়ের চিন্তা করছেন না’।

শার্প বলেন, এইসব কর্মসুচীতে কিশোর তরুনদেরকেও কাজে লাগানো যায় –

‘অলিম্পিকের আগে এবং অলিম্পিক চলাকালে দারুণ সাড়া জেগেছিল, পরেও তার রেশ ছিল। এখন অর্থনীতির মন্দাবস্থা, তাই মনে হয় মা বাবা ছেলেমেয়েদের পড়াশোনার দিকে বেশী মনোযোগ আকর্ষণের চেষ্টা করছেন, খেলা বা অন্য কাজে নয়’।

এখন লডন বিরাট অংকের ব্যয়বরাদ্দ নিয়ে তৈরী হচ্ছে অলিম্পিকের জন্য। তবে এথেন্সের মানুষ সতর্ক করছেন – আর্থিক দিক থেকে ক্ষতিগ্রস্ত গ্রীসের কথা তাদের মনে রাখা উচিত। তবে যা কিছুই বলা হোক না কেন……অলিম্পিক তো অভিনব অভিজ্ঞতা, বিশ্বের সেরা ক্রীড়া উত্সব অলিম্পিক…..

XS
SM
MD
LG