অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশ এক সন্ধিক্ষণে: রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা পরিস্থিতি: দ্বিতীয় পর্ব

  • শাগুফতা কুইন

Seminar on Bangladesh

Seminar on Bangladesh

ওয়াশিংটন ডিসি তে সম্প্রতি American Security Project, ASP এবং Bangladesh Institute of Peace and Security Studies, BIPSS এর যৌথ উদ্যোগে, Bangladesh at a crossroads: A Political and security Outlook শীর্ষক একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।
সম্মেলনের দ্বিতীয় ভাগের শিরনাম ছিল Threat of Rising Militancy and Terrorism. শাফকাত মুনির, Bangladesh Institute of Peace and Security Studies এর Associate Research Fellow এবং IHS Jane’s এর বাংলাদেশ ও নেপাল বিষয়ে রিস্ক অ্যানালিস্ট।
শাফকাত মুনির বলেন বাংলাদেশে সন্ত্রাসবাদ ও চরমপন্থার সমস্যা রয়েছে।
তিনি বলেন, “তিনি বলেন বাংলাদেশে সন্ত্রাসবাদ ও চরমপন্থার সমস্যা খুবই উদ্বেগের বিষয়ে শুধু বাংলাদেশের জন্য নয়, ওই অঞ্চলের জন্য এবং যুক্তরাষ্ট্রে নীতি নির্ধারকদের জন্য কারণ তা আঞ্চলিক স্থিতিশীলতায় গুরুতর প্রভাব ফেলেছে।এক দশকেরও বেশি সময় ধরে বাংলাদেশ সন্ত্রাসবাদ ও চরমপন্থার সমস্যার সম্মুখীন। সন্ত্রাসবাদ ও চরমপন্থার সমস্যা বাংলাদেশে আরও বেড়েছে অন্যান্য নিরাপত্তা এবং শাসন সংশ্লিষ্ট চ্যালেঞ্জের কারণে।”
আলোচনায় আরও উল্লেখ করা হয় যে বহু বাংলাদেশি যারা আফগানিস্তানে মুজাহেদিনের পক্ষে যুদ্ধ করেছে তারা এখন বাংলাদেশে। বলা হয় উগ্রবাদ ও সন্ত্রাসবাদের হুমকি বাড়ছে কারণ ওই অঞ্চলে তাদের সংযোগ রয়েছে। আফগানিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্রের সৈন্য প্রত্যাহার এবং তার প্রভাব বাংলাদেশ সহ ওই অঞ্চলের সর্বত্র দেখা যাবে। Bangladesh Institute of Peace and Security Studies এর President Major General Muniruzzaman সম্মেলনের দ্বিতীয় ভাগ সঞ্চালন করেন।
সম্মেলনের তৃতীয় ভাগের শিরনাম ছিল Bangladesh’s Economy: Prospects and Challenges। এতে অংশ নেন এহেসান তাকবিম, ড: আমিনুর রহমান, শামারুখ মোহিউদ্দীন এবং ড: মানজুরুল করিম।
বাংলাদেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি ও ভবিষ্যত্ উজ্জল বলে মনে করেন বক্তারা। তবে দুর্নীতি একটা বড় সমস্যা বলে অনেকেরই মত। এহেসান তাকবিম হচ্ছেন Bangladesh American Public Affairs Committeeর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান। বাংলাদেশের ভবিষ্যত্ সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ সম্পর্কে তাকে প্রশ্ন করেছিলাম। তিনি বললেন বাংলাদেশের রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা একটা চ্যালেঞ্জ। শ্রমিকদের অধিকার, ইউনিয়ন বিষয়ে তিনি বক্তব্য রাখেন।
চতুর্থ পর্বের শিরনাম ছিল Bangladesh and its Relationship with the Neighborhood। অ্যান্ড্রু হল্যান্ড এর সঞ্চালনায় এতে অংশ নেন মাহফুজ উল্লা, নিলান্থী সামারনায়েকে এবং ড: এলিজাবেথ ফেরিস।
বক্তারা যে সব বিষয়ে আলোচনা করেন তার মধ্যে ছিল আঞ্চলিক রাজনৈতিক পরিবেশ এবং নিরাপত্তা জনিত প্রভাব, ওই অঞ্চলে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব, SAARC ও আঞ্চলিক প্রভাব, দক্ষিণ এশিয়া বিশেষ করে বাংলাদেশের সঙ্গে চীনের সম্পর্ক এবং ভারত বাংলাদেশ সম্পর্ক। নিলান্থী সামারনায়েকে হচ্ছেন Center for Strategic Studies সংগঠনের এশিয়া বিষয়ে বিশ্লেষক।
ভারত বাংলাদেশ সম্পর্ক বিষয়ে তাকে প্রশ্ন করেছিলাম।
তিনি বলেন “বাংলাদেশ ও ভারতের সম্পর্ক বেশ জটিল। বর্তমানে তিস্তা পানি বন্টন চুক্তি এখনও পাশ হয়নি। অনেক আশা ছিল যে তা অনুমোদিত হবে। শোনা যাচ্ছে সংসদের শীতকালীন অধিবেশনে তা উথ্থাপিত হবে। দেখা যাক শেষ পর্যন্ত তা অনুমোদিত হয় কিনা। তাছাড়া ভারত-বাংলাদেশের স্থলসীমা চুক্তি এখনও ভারতে অনুসমর্থিত হয়নি। তবে গত কয়েক বছরে দ্বীপাক্ষিক সম্পর্কে অনেক অগ্রগতি হয়েছে। আমি আশাবাদী। আমাদের এখন ঘটনা প্রবাহের উপর দৃষ্টি রাখতে হবে।”
American Security Project, এবং Bangladesh Institute of Peace and Security Studies ’র যৌথ উদ্যোগে, অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক সম্মেলনের প্রতিটি পর্বেই বক্তাদের উপস্থাপনার পর উপস্থিত দর্শকরা বক্তাদের প্রশ্ন করেন।
XS
SM
MD
LG