অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

প্রায় ১৬ ঘন্টা পর অস্ট্রেলিয়ার সিডনীর জিম্মি সংকটের ইতি ঘটল। পুলিশ ক্যাফেতে ঝড়ের বেগে ঢুকে পরে পরিস্থিতির নিয়ন্ত্রণ নেয়।

কয়েকজনকে স্ট্রেচারে করে নিয়ে যেতে দেখা যায়। হতাহতের সংখ্যা এখনও নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি।

আগে পুলিশ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সিডনীর বর্তমান জিম্মি সংকটের জন্যে যাকে সন্দেহ করা হচ্ছে, সে একজন ইরানী অভিবাসী, যার নাম মান হারোন মোনিস।

পুলিশ বিশ্বাস করে, মোনিসই সেই ব্যক্তি যে সোমবার সকাল থেকে সিডনীর ক্যাফেতে অজ্ঞাতসংখ্যক মানুষকে জিম্মি করে রেখেছে।

অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী টোনি অ্যাবট বলেছেন, সিডনির মূল বাণিজ্যিক এলাকায় অবস্থিত লিন্ডট চকোলেট ক্যাফের এই ঘটনা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হতে পারে।

মান হারোন মোনিস, নাম পরিবর্তনের আগে মান্তেঘি বুরজার্দি হিসেবে পরিচিত ছিল। আফগানিস্তানে নিহত অস্ট্রেলিয়ান সেনাদের পরিবারের উদ্দেশ্যে চিঠি লিখে সে সবার নজরে পড়ে। সেই চিঠিতে সে সেনাদের ভূমিকার সমালোচনা করে।

সোমবারে জিম্মিদের ক্যাফেতে জানালার সামনে হাত তুলে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। জানালা দিয়ে একটি কালো পতাকাও দেখা যায়। সেই পতাকার সঙ্গে ইসলামিক স্টেইটের পতাকার সাদৃশ্য আছে।

XS
SM
MD
LG