অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ঠেংগার চরে স্থানান্তরের বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনায় উদ্বিগ্ন রোহিঙ্গারা


বাংলাদেশে আশ্রয় গ্রহণকারী রোহিঙ্গাদের নোয়াখালী জেলার হাতিয়ার একটি দুর্গম চরে স্থানান্তরে বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা নিয়ে ব্যাপক আলাপ-আলোচনা চলছে- দেশে এবং বিদেশে। তবে নতুন আর পুরনো আসা রোহিঙ্গাদের মধ্যে এই পরিকল্পনার ঘোষণা ব্যাপক ভয়ভীতি আর উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার জন্ম দিয়েছে।

শুক্রবার কক্সবাজারের টেকনাফ আর উখিয়ার লেদা এবং কুতুপালং-এর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের কয়েকজনের সাথে তাদের প্রতিক্রিয়া জানতে কথা হয়। গত ডিসেম্বরে বাংলাদেশে আসা সেখানকার প্রাক্তন প্রাইমারী স্কুল শিক্ষক মোহাম্মদ হাশেম, আর ৯ বছর আগে আসা লায়লা বেগমসহ কয়েকজন রোহিঙ্গা বললেন, সীমাহীন অত্যাচার, নির্যাতন সহ্য করতে না পেরেই, আতংকের মধ্যে আমরা এ দেশে এসেছি। আবার নতুন করে আতংক দেখা দিয়েছে এ দেশের সরকারের ঘোষণায়। যদি আমাদের কোথাও যেতেই হয় তবে নিজ দেশে যাব-অন্য কোথাও নয়।

টেকনাফের লেদা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের সভাপতি দুদু মিয়া এ দেশে এসেছেন ২০১০ সালের দিকে। তিনি বললেন, আমাদের মিয়ানমারের নাগরিকত্ব দিয়ে দেয়া হলেই আমরা দেশে ফেরত যেতে চাই; ঠেংগার চরে নয়।

এ সম্পর্কে বিশ্লেষণ করেছেন আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা আইওএমএর প্রাক্তন কর্মকর্তা ও বর্তমানে অভিবাসন বিষয়ক গবেষক বিশ্লেষক আসীফ মুনীর।

যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, জাতিসংঘসহ বিভিন্ন দেশ ও আন্তর্জাতিক সংস্থা এবং বিভিন্ন মানবাধিকার গোষ্ঠী বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনার সাথে ইতোমধ্যেই দ্বিমত পোষণ করেছে। ঢাকা থেকে আমীর খসরু।

XS
SM
MD
LG