অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সৌদি সামরিক জোটে অংশগ্রহণ নিয়ে ঢাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া


সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন সন্ত্রাস বিরোধী সামরিক জোটে যোগ দেয়া নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে বাংলাদেশে। এ জোটে নিজেদের ভূমিকা কি হবে তা জানে না বাংলাদেশ।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম নিজেই তা কবুল করেছেন। তিনি বলেছেন, আমরা প্রাথমিকভাবে জোটে যোগদানের ব্যাপারে সায় দিয়েছি। বিস্তারিত জানার চেষ্টা করছি।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক অবরসপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল মুনীরুজ্জামান বলেছেন, জোটে বাংলাদেশের ভূমিকা স্পষ্ট নয়। কী জোটে বাংলাদেশ যোগ দিলো তা জনগনের কাছে স্পষ্ট করা উচিত।

জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্ন্তজাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক তারেক শামসুর রহমান মনে করেন, এ জোটে বাংলাদেশের অংশগ্রহণ করা উচিত হয়নি। তিনি বলেন, বাংলাদেশে এ নিয়ে কোন আলোচনা বা গবেষণা হয়নি।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক আব্দুর রব খান গণমাধ্যমকে বলেছেন, ইরাণের মতো বড় শক্তিকে বাদ দিয়ে এই জোট হলেও বেশিরভাগ মুসলিম দেশের সঙ্গে থাকাটা বাংলাদেশের জন্য ব্যতিক্রমী কিছু নয়।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেছেন, এটি আইএস বিরোধী কোন জোট নয়। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী মিশনে বাংলাদেশ থেকে সেনা পাঠানো হয়ে থাকে। তবে সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন এই সামরিক জোটে সেনা পাঠাতে হলে বাংলাদেশের নীতিতে বড় ধরনের পরিবর্তন আনতে হবে বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা।

মঙ্গলবার রিয়াদে সৌদি প্রতিরক্ষামন্ত্রী যুবরাজ মোহামেদ বিন সালমান এ জোটের ঘোষণা দেন। তিনি বলেছেন, এই জোট ইরাক, সিরিয়া, মিশর আর আফগানিস্তানে সন্ত্রাসী ও জঙ্গীদের বিরুদ্ধে লড়াই করবে।

তবে এই জোটে নিজেদের নাম দেখে বিস্ময় প্রকাশ করেছে পাকিস্তান। দেশটির পররাষ্ট্র সচিব আইজাজ চৌধুরী বলেন, জোটের সদস্য হিসেবে পাকিস্তানের নাম থাকার খবরটি পড়ে তিনি বিস্মিত।

XS
SM
MD
LG