অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

অনেকে বলেন ফুটবলের আত্মার বসবাস যেখানে সেই দেশের নাম ব্রাজিল। আর তার প্রমাণ মেলে বিশ্বকাপ ফুটবলের প্রতিটি খেলার আগে।

ধরা যাক সাপ্তাহিক যে কোনো একটি কর্মদিবসে সন্ধ্যার দিকে বিশ্বকাপের একটি ম্যাচ হবে। খেলা শুরুর পাঁচ মিনিট আগে আপনি রিও ডি জেনেরিও অথবা ব্রাজিলের যে কোনো শহর-উপশহর বা গ্রামের রাস্তায় বেরুবেন, দেখবেন খালি। কোথাও কেউ নেই। রাস্তার কোথাও যানযট নেই। দোকান পাঠ বন্ধ। অস্বাভাবিক দৃশ্য।

সাঁও পাওলো, যাকে বিশ্বের অন্যতম প্রধান ঘন বসতির শহর বলা হয় সেখানে পর্যন্ত ফাঁকা পাবেন। কারণ কি? কারণ সব মানুষ ঘরে বসে আছে। টিভি সেটের সামনে। পরিবারের সদস্য, আত্মীয়, প্রতিবেশী ও বন্ধুদের সঙ্গে খেলা দেখছে সবাই।

একই ঘরের হয়ত একজন একদল আর অন্যজন অন্যদল সমর্থন করছেন। কার সমর্থনের দল জিতলো আর কার দল হারলো তাতে কিছুযায় আসে না। সবাই মিলে খেলা দেখার আনন্দ উপভোগ করাই ব্রাজিলিয়ানদের ঐতিহ্য। তাদের অভিজ্ঞতার অংশ।

সাঁও পাওলার অধিবাসি রেনান আরাওজো এ বিষয়ে বলেন, “এটা আমাদের সংষ্কৃতি ও ডিএনএ; আপনি আমেরিকান হোন, আফ্রিকান হোন বা ইটালীয়ান হোন, আমরা আপনাকে স্বাগত জানাই”।

যতোক্ষণ খেলা চলে রাস্তাঘাট খালিই থাকে। খেলা শেষ হলে রাস্তায় মানুষজন চলাচল শুরু হয় ঠিকই তকে দোকানপাঠ আর খোলেনা অধিকাংশ শহরে। সাঁও পাওলোর অনেক এলাকায় বিশ্বকাপ ফুটবল উপলক্ষ্যে চলছে কার্নিভ্যাল।
XS
SM
MD
LG