অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমন: যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশ সহযোগিতা


আজকের কল ইন শো হ্যালো ওয়াশিংটনের বিষয় হচ্ছে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমন: যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশ সহযোগিতা। আমরা সকলেই জানি মাত্র গত পরশু সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রী জন কেরি বাংলাদেশে এক সংক্ষিপ্ত সফরে গিয়েছিলেন । ২০১২ সালে তৎকালিন পররাষ্ট্র মন্ত্রী হিলারি ক্লিন্টনের পরে এটি ছিল যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রীর বাংলাদেশ সফর। সময়ে পরিমাপে না মেপেও বলা যায় যে এই সফর ছিল গুরুত্বপূর্ণ । কেরি তাঁর সফরের সময়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পররাষ্ট্র এ এইচ এম মাহমুদ আলীর সঙ্গে বৈঠকে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস দমনে বাংলাদেশকে যুক্তরাষ্ট্রের পুর্ণাঙ্গ সহযোগিতার কথা বলেছেন, সন্ত্রাসের ব্যাপারে বাংলাদেশের জিরো টলারেন্স নীতির প্রশংসা করেছেন। বিশেষত জুলাই মাসে বাংলাদেশে বড় ধরণের দুটি জঙ্গি হামলার পর এই সফরকে পর্যবেক্ষকরা খানিকটা ভিন্ন দৃষ্টিতে দেখছেন।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময়ে টেড কেনেডির অবদানকে তিনি স্মরণ করেছেন এবং বঙ্গবন্ধু জাদুঘর পরিদর্শন করে বাংলাদেশের জাতির জনকের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছন। অনেকেই মনে করছেন বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে সম্পর্ক আরো উন্নত করার ক্ষেত্রে এই সফর এক নতুন মাত্রা যোগ করেছে। তবে আমাদের আজকের কল ইন শোতে আমরা শ্রোতাদের প্রশ্ন এবং আমাদের প্যানেলিস্টদের উত্তরের মধ্য দিয়ে মূলত আলোকপাত করবো সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমনে যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের মধ্যে সহযোগিতা বিষয়ে।

আমাদের বিশেষজ্ঞ অতিথী প্যানেলে টেলি সম্মিলনি লাইনে যোগ দিয়েছেন, ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটির পলিটিক্স এন্ড গভর্ণমেন্ট বিভাগের প্রধানঅধ্যাপক আলী রীয়াজ , ঢাকা থেকে চিন্তক গোষ্ঠি বাংলাদেশ ইন্টারপ্রাইজ ইনস্টিটিউটের নিরাপত্তা বিশ্লেষক এয়ার কমোডর ইশফাক ইলাহী চৌধুরী এবং ডালিস থেকে আমাদের সঙ্গে রয়েছেন জাহাঙ্গির নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক তারেক শামসুর রাহমান। অধ্যাপক রীয়াজ , এয়ার কমোডর চৌধুরী এবং অধ্যাপক রাহমান আপনাদের স্বাগত জানাচ্ছি এই অনুষ্ঠানে । এবার সরাসরি প্রশ্ন নেওয়ার পালা।

XS
SM
MD
LG