অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

হ্যালো ওয়াশিংটন: বাংলাদেশে রাজনৈতিক অস্থিরতা এবং সহিংসতা নিরসনের উপায়

  • আনিস আহমেদ

আপনাদের জিজ্ঞাসা আর আমাদের জবাবের এই অনুষ্ঠানে আজকের বিষয় বাংলাদেশে রাজনৈতিক অস্থিরতা এবং সহিংসতা নিরসনের উপায়। আজ টেলি-সম্মিলনি লাইনে আমাদের অতিথী প্যানেলে রয়েছেন ঢাকা থেকে আইন ও সালিশ কেন্দ্রের সভানেত্রী , ট্রান্সপেরেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের চেয়ারপার্সন , সেন্টার ফর পলিসি ডাইয়ালগের সদস্যা , সাবেক তত্ববধায়ক সরকারের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল, রয়েছেন ঢাকা থেকেই প্রবীণ সাংবাদিক , নিবন্ধকার ও বিশ্লেষক আবেদ খান আর এখানে যুক্তরাষ্ট্রের ম্যারিল্যান্ড থেকে আমাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন আমেরিকান পাবলিক ইউনিভার্সিটির National Security Studies ‘এর অ্যাডজাঙ্কট ফ্যাকাল্টি ড সাইদ ইফতিখার আহমেদ ।

যেমনটি আমরা সকলেই জানি যে গত অন্তত ছ মাস ধরে বাংলাদেশে এক ধরণের অনাকাঙ্খিত অস্থিরতা বিরাজ করছে , রাজনৈতিক পরিমন্ডলে। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রক্রিয়া নিয়ে সরকারী জোট এবং বিরোধী জোটের মধ্যে যে মতপার্থক্য , তাকে কেন্দ্র করেই আমরা লক্ষ্য করলাম সহিংসতা চললো প্রায় অবিরাম । প্রত্যাশিত সংলাপ হলো না বিবদমান দু পক্ষের মধ্যে বরঞ্চ হিংসা হানাহানি বেড়েই গেল। বিপুল ক্ষতি হলো জান মালের। বিরোধী জোটের অংশ গ্রহণ ছাড়াই যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো ৫ই জানুয়ারি , সেই নির্বাচনের সময়ে যেমন তেমনি তার পর পরই আবারও আক্রান্ত হলো নিরীহ মানুষ। এবারের লক্ষ্য ছিল ধর্মীয় সংখ্যঅলঘু, সুনির্দিষ্ট ভাবে বললে বলতে হয় দেশের হিন্দু সম্প্রদায় । নির্বাচন কেন্দ্রিক ইস্যু ছাড়াও আমরা লক্ষ্য করেছি বাংলাদেশে একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও শাস্তিকে কেন্দ্র করেও সহিংসতা হয়েছে। হত্যা , অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে প্রশ্ন উঠতেই পারে যে রাজনৈতিক রেষারেষির শিকার কি হবে সাধারণ জনগোষ্ঠি , সে তারা সংখ্যায় বেশি হোক কিংবা কম , হিন্দু , মুসলমান , বৌদ্ধ , খ্রীষ্টান যেই হোক না কেন। এ থেকে বেরিয়ে আসারই উপায়ই বা কি ? আমাদের শ্রোতাদের প্রশ্নের জবাবে প্যানেলিস্টদের মন্তব্যের মধ্যে আমরা খোঁজার চেষ্টা করছি এর জবাব ।

XS
SM
MD
LG