অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

চীন থেকে বাংলাদেশের সাবমেরিন কেনা নিয়ে প্রশ্ন ভারতীয় প্রতিরক্ষা বিশ্লেষকগণের


চীনের কাছ থেকে বাংলাদেশের সাবমেরিন কেনার উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন ভারতীয় প্রতিরক্ষা বিশ্লেষকগণ। তাদের মতে, বাংলাদেশের এ পদক্ষেপ উস্কানিমূলক। ভারতকে চারপাশ থেকে ঘিরে ফেলতে চীনের যে দীর্ঘদিনের রণকৌশল, এটা আসলে তারই একটা অংশ।

যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়াভিত্তিক প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত ওয়েবসাইট ডিফেন্স নিউজ ডটকম এ বিষয়ে তাদের দিল্লি সংবাদদাতার পাঠানো একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। রাশিয়ার রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত স্পুটনিক নিউজে এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদনে প্রশ্ন রাখা হয়েছে, চীন কি তার দক্ষিণের প্রতিবেশীকে ঘিরে ফেলতে চাইছে?

এর আগে টাইমস অব ইন্ডিয়ার মতো প্রভাবশালী ভারতীয় গণমাধ্যমে খবর বেরিয়েছে, নৌবাহিনীতে সাবমেরিন যুক্ত করা এবং তিন দশকের মধ্যে প্রথমবারের মতো চীনা প্রেসিডেন্টের বাংলাদেশ সফর সম্পন্ন হওয়ার প্রেক্ষাপটে আগামী ৩০শে নভেম্বর ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী মনোহর পরিকর ঢাকা যাচ্ছেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মধ্য ডিসেম্বরে দিল্লি সফরের কথা রয়েছে। ভারতীয় নৌবাহিনীর সাবেক প্রধান এডমিরাল অরুণ প্রকাশ ডিফেন্স নিউজ ডটকমকে বলেছেন, বাংলাদেশের অর্থনীতি এবং তিন দিক থেকে ভারত বেষ্টিত থাকা বিবেচনায় দেশটির সাবমেরিন সংগ্রহ করা শুধু অযৌক্তিক নয়, বরং ভারতের জন্য এটা প্রকৃতপক্ষে একটি উস্কানিমূলক কাজ। তার কথায়, সাবমেরিনকে একটি আক্রমণাত্মক অস্ত্র হিসেবেই বিবেচনা করা হয়। আর যা শুধুই ভারতের জন্য হুমকি বয়ে আনবে। তার সামুদ্রিক নিরাপত্তাজনিত সমীকরণকে জটিল করে তুলবে।

মি. প্রকাশের মতে, চীন তার তাঁবেদার রাষ্ট্রগুলোকে নিয়ে ভারতকে ঘিরে ফেলার যে রণকৌশল নিয়েছে, এটা তারই অংশ। অবশ্য এ দৃষ্টিভঙ্গির সঙ্গে ভিন্নমত প্রকাশ করেছেন ভারতীয় থিঙ্ক ট্যাঙ্ক সেন্টার ফর পলিসি রিসার্চের অধ্যাপক ভরত কার্নদ। তার কথায়, এটা বাংলাদেশের জন্য এমন একটি উত্তম ডিল, যা তার পক্ষে অগ্রাহ্য করা কঠিন। কিন্তু মি. ভরতও মন্তব্য করেন, মোদি সরকারকে নিশ্চিত করতে হবে চীন যেন এ থেকে ফায়দা না নিতে পারে।

ভারতের মেরিটাইম ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক এবং নৌবাহিনীর ক্যাপ্টেন গুরপ্রীত খুরানা বলেন, কোনো ধরনের প্রথাগত সামুদ্রিক সামরিক হুমকিতে না থাকা বাংলাদেশের সাবমেরিন সংগ্রহের কারণ বোঝা দুষ্কর। জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের কূটনীতি ও নিরস্ত্রীকরণ বিভাগের অধ্যাপক স্মরণ সিং বলেছেন, এটা দক্ষিণ এশিয়ায় অস্ত্র প্রতিযোগিতাকে তীব্র করবে। লন্ডন থেকে মতিউর রহমান চৌধুরীর রিপোর্ট


XS
SM
MD
LG