অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ঈদুল আযহা বা কোরবানীর ঈদ সমাগত। বাংলাদেশ জুড়ে চলছে ঈদুল আযহার ব্যাপক প্রস্তুতি। গ্রামে শহরে পাড়ায় পাড়ায় হাট বসেছে কোরবানীর পশুর। আর এর পাশাপাশি তথ্য প্রযুক্তির সেবা নিয়ে অনলাইনে কোরবানীর পশু কেনার সুযোগ নিচ্ছেন অনেকেই।

দক্ষিন এশিয়ার মুসলমানরা ঈদুল আযহায় কোরবানীর পশু হিসাবে সাধারণত পশুর হাট থেকে কিনে গরু, ছাগল বা এ জাতীয় অন্য পশু কোরবানী দেন। ঈদের অন্তত এক মাস আগে থেকেই দেশজুড়ে বিভিন্ন স্থানে শুরু হয় পশুর হাট। কেনাবেচা চলে অবিরাম। কয়েক বছর ধরে তার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে পশু কেনাবেচার অনলাইন মার্কেট।

পশু বিক্রেতাদের অধিকাংশই গ্রাম ভিত্তিক। তারা বলেন অনলাইন মার্কেট তাদের পশু কেনাবেচার ক্ষেত্রে শহুরে ক্রেতাদেরকে আকৃষ্ট করতে আরো সহায়ক হয়েছে।

ওয়েব বাংলাদেশ ডট কম নামের অনলাইন পোর্টালের মাধ্যমে ২০০৬ সাল থেকে বাংলাদেশে শুরু হয় পশু কেনাবেচা। ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়েই এই ওয়েবসাইটে ঢুকতে পারেন। পরে যুক্ত হয়েছে আরো কয়েকটি ওয়েবসাইট।

আমষ্টার্ডাম ভিত্তিক অভিবাসি মমিন আহমেদ লিখেছেন বাংলাদেশী অনলাইন গরুর দোকান তার একটি স্বপ্ন পূরণ করেছে। তিনি বলেন, “আমি ২৮ বছর আগে দেশ ছেড়েছি আর ঈদুল আযহায় আমি পশু কোরবানী দিতে পারতাম না এবং তাতে অঅমার মন খারাপ হতো। এখন আমি আমারদেশইশপডকম’কে ধন্যবাদ জানাই আমাকে এ সরেযাগকরে দেয়ার জন্য”।

এই ওয়েবসাইটের প্রতিষ্ঠাতা আতাউর রহমান বললেন, এই ধারণঅ মানুষ দ্রুত লুফে নিচ্ছেন। তিনি বলেন, “অনলাইনে কোরবানীর পশু কেনার ধারণা বাংলাদেশে নতুন। ২০০৯ সালে যখন আমার দলটি অনলাইনে গরু বিক্রি শুরু করে তখন ৭৬টি গরু বিক্রি হয়।এ বছর আমরা ১৮০টি গরু অনলাইন সেল দিয়েছি এবং আশা করছি সবগুলোই ঈদের আগে বিক্রি হয়ে যাবে”।

তিনি বলেন, এখনো পর্যন্ত অনলাইনের সব ক্রেতা ঢাকারই। আগামী বছর অন্যান্য শহরেও অনলাইনে পশু বিক্রির পরিকল্পনা রয়েছে। তিনি বলেন অচিরেই এই অনলাইন পশুর হাট মানুষের কাছে জনপ্রিয় হবে।

রহমান বলেন গ্রামের মানুষদেরকে এই অনলাইন পশু বিক্রির বিসয়টি জনপ্রিয় করেছে। এর মাধ্যমে তারা ক্ষমতায়িত হয়েছে। ঢাকায় অন্তত ২৪টি অনলাইন পোর্টাল এ বছর কোরবানীর পশু বিক্রি করছে। এসবের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে: আমারদেশইশপডটকম, এখনিডটকম, বিক্রয়ডটকম, সেলবাজারডটকম, ইত্যাদি।

এসব ওয়েবসাইটে ক্রেতারা পশুর ছবি, দাম, ওজোন এবং কোনো কোনো ক্ষেত্রে কৃষকের নাম ও ছবি দেখতে পারেন। ক্রেতা পশুটি পছন্দ করার পর ব্যাংকের মাধ্যমে তার দাম দিতে পারেন। কেনাবেচা সম্পন্ন হওয়ার পর বেশীরভাগ ক্ষেত্রে ক্রেতার বাড়ীতে পশু পৌঁছে দেয়া হয়।

XS
SM
MD
LG