অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস-২০১৬।
‘অটিজম’ শব্দটির সাথে সবাই পরিচিত হলেও তা প্রয়োজনের তুলনায় তা সামান্যই । মস্তিস্কের স্নায়ুবিক সমস্যা যা মস্তিস্কের সাধারণ কর্মক্ষমতাকে ব্যাহত করে,তার নামই অটিজম । যার আরেক নাম অটিজম স্পেকট্রাম সিনড্রোম (ASD)। ২০০৭ সাল থেকে জাতিসংঘে সিধান্ত গ্রহনের পর ২০০৮ সাল থেকে বিশ্বব্যাপী অটিজম সচেতনতা দিবস পালিত হয়ে আসছে । চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় অটিজম কি? এপোলো হাসপাতাল বাংলাদেশের চাইল্ড হেলথ স্পেশালিস্ট ডা.তোশিবা রহমান এর সাথে কথা বলেছিলাম এবারের নবম অটিজম সচেতনতা দিবসে । উনি আমাদের বললেন,সাধারণ অর্থে শিশুদের মধ্যে যদি বিশেষ কিছু আচরন দেখা যায় তাকেই অটিজম বলে ।
শিশুর নাম ধরে ডাকলেও সাড়া না দেয়া,চোখে চোখ রাখে না বা রাখতে না পারা কিংবা দুই বছরেরও পরে কথা বলা শুরু করা অটিজমের লক্ষণ বলে ধরে নেয়া হয় ।
৭০ থেকে ৮০ ভাগ ক্ষেত্রে অটিজমের সঠিক কারন অনুসন্ধান করা যায় না । কিন্তু কখন বুঝবেন আপনার শিশুটি অটিজমে আক্রান্ত কিংবা এর ঝুঁকিতে রয়েছে? চাইল্ড ফিজিওলজিস্ট তারানা আনিস বললেন,মাত্রা অনুযায়ী শিশুর চিকিৎসা ক্ষেত্র নির্ধারিত হয় । শিশুটি কি স্পেশাল স্কুলে যাবে নাকি সাধারণ স্কুলে যাবে তা নির্ধারণ করা হয় তার মাত্রা পরিমাপের পর ।
যুক্তরাষ্ট্রের অটিজম সোসাইটির পরিসংখ্যান অনুযায়ী বিশ্ব জনসংখ্যার প্রায় এক শতাংশ মানুষ অটিজম আক্রান্ত আর বাংলাদেশে প্রায় দেড় লাখের মত অটিজম আক্রান্ত মানুষ রয়েছেন এবং প্রতি বছর তার সাথে যোগ হচ্ছে প্রায় পনেরশ শিশু। বাংলাদেশে অটিজম নিয়ে কাজের করছে হাতে গোনা কয়েকটি সংস্থা । তাদের মধ্যে রয়েছে অটিজম রিসোর্স সেন্টার,‘সেন্টার ফর নিউরোডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড অটিজম ইন চিলড্রেন' এবং ঢাকা শিশু হাসপাতালে শিশু বিকাশ কেন্দ্র। ডা.আনিসা জাহান,সহযোগী অধ্যাপক,আনোয়ার খান মডার্ণ হাসপাতালে কর্মরত। তিনি বললেন,কিছুটা প্রতিরোধ করা যায় অটিজম অভিভাবকের সচেতনতায়।
শিশুকে বেশী বেশী সময় দেয়া,তার সাথে খেলা করা এবং নতুন নতুন জিনিসের সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়া,এতে করে শিশুর বুদ্ধি এবং মানসিক বিকাশ স্বাভাবিক হয় ।
বাবা-মা কি করবেন,যখন তারা বুঝবেন শিশুটি অটিজমে আক্রান্ত? লক্ষন দেখা মাত্র অবশ্যই একজঅন ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে ।
কেন অটিজম আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে বাংলাদেশে? তার মূল কারন সামাজিক ব্যস্ততা বেড়ে যাওয়া এবং একক পরিবারের সংখ্যা বেড়ে শিশু একা হয়ে যাচ্ছে । সারাদিন টিভি কিংবা যেকোন একটা কিছু নিয়ে একা ব্যস্ত থাকা অনেকটা প্রভাব ফেলে শিশুর উপর ।

যেখানে প্রতি ১০জন অটিস্টিক শিশুর মধ্যে ২জনের বিশেষ পারদর্শীতা দেখা যায়,সেখানে আমাদের সবার স্বাভাবিক আচরণ শিশুটিকে আমাদেরই একজন ভাবতে সাহায্য করবে। তাদের অধিকার নিশ্চিত করা আমাদেরই দায়িত্ব।
শরিফ ঊল হক,
ঢাকা রিপোর্টিং সেন্টার।
সহযোগিতায় - ইউএসএআইডি এবং ভয়েস অব আমেরিকা।
প্রযোজনায় -রেডিও টুডে প্রাইভেট লিমিটেড।

XS
SM
MD
LG