অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস-২০১৪


আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস-২০১৪

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস-২০১৪

শরীফ উল হক
ঢাকা রিপোর্টিং সেন্টার
সহযোগিতায়- ইউএসএআইডি এবং ভয়েস অব আমেরিকা

মানবাধিকার প্রতিটি মানুষের এক ধরনের অধিকার যেটা তার জন্মগত ও অবিচ্ছেদ্য। মানুষ কি পাচ্ছে তার সেই অধিকার? জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ কর্তৃক ১৯৪৮ সাল থেকে ১০ ডিসেম্বর বিশ্বব্যাপী উদযাপন করা হয় আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস। লক্ষ্য মানুষকে তাদের অধিকার সম্পর্কে সচেতন করা। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন কারণে মানুষ বঞ্চিত হয় তার অধিকার থেকে। সেইবঞ্চনা ঘটতে পারে জাতিগত সংখ্যালঘুদের ক্ষেত্রে অথবা হতে পারে ভাষাভিত্তিক বা অঞ্চলভিত্তিকও।

বেসরকারী মানবাধিকার সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্রের তথ্যানুযায়ী ২০১৪ সালের প্রথম দশ মাসে বিচারহীনতার চিত্র হতাশাজনক। নারীদের এখনো দ্বিতীয় লিঙ্গ হিসেবে দেখা হয়। পুরুষ শাসিত সমাজে তাদের শুধুমাত্র ঘরের কাজের জন্যই উপযুক্ত বলে বিবেচনা করা হয়। আমাদের সমাজে রয়ে গেছে গেছে এসিড সন্ত্রাস, গৃহকর্মী নিপীড়ন এবং নারী পাচারের মত দুঃখজনক ঘটনা। সাথে সাথে যৌন হয়রানি এবং যৌতুকের বলির মাত্রাও উদ্বেগজনক। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক সুলতানা কামাল বলেন, বেশীরভাগ ক্ষেত্রে সরকারের উদাসীনতায় বিচার এবং অধিকার বঞ্চিত হয় মানুষ। কিভাবে মানুষকে আরো বেশী সম্পৃক্ত করা যায় পুরো প্রক্রিয়াটির সাথ্‌ যেন সে তার অধিকার সম্পর্কে সচেতন হয়, সেদিকে নজর দিতে হবে বলে মনে করেন সুলতানা কামাল।

একটি শিশু হারাচ্ছে তার শিক্ষা গ্রহণের অধিকার দারিদ্রের কষাঘাতে। তীব্র ঠান্ডায় জবুথবু হয়ে প্রাণ হারাচ্ছেন বয়ো-বৃদ্ধ কিংবা সংসারে সচ্ছলতা আনয়নে ভাল কাজের লোভে পড়ে বিদেশে পাচার হয়ে যাচ্ছেন একজন নারী। পাশাপাশি সমাজে এখনো নিশ্চিত করা যায়’নি সবার পুষ্টি এবং সঠিক স্বাস্থ্যসেবার বিষয়টি। এইসব বঞ্চিত মানুষগুলোকে সঠিক সেবা এবং তাদের স্বত্ব বুঝে নেয়ার সাহায্যের জন্য গঠিত হয়েছে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন। কমিশনের চেয়ারম্যান ড.মিজানুর রহমান বললেন, চলতি বছরে মানবাধিকার পরিস্থিতি তুলনামুলক ভাবে ভাল। তার মতে, মানবাধিকার রক্ষার দ্বায়িত্ব শুধু সরকারের নয়। সমাজের প্রতিটি বিভাগে প্রত্যেকটি মানুষের রয়েছে দ্বায়িত্ব, তার অধিকার বুঝে নেয়ার। শুধু ১০ ডিসেম্বর নয়, বছরের প্রতিটি দিনই মানবাধিকারের কথা বলতে হবে সবাইকে। একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে এটা দ্বায়িত্বের মধ্যে পড়ে।

শহরের ব্যস্ত রাস্তা থেকে প্রত্যন্ত অঞ্চলের পায়ে হাঁটাপথ। প্রত্যেকটি স্থানে নিশ্চিত হোক মানবাধিকার। মানুষ বেঁচে থাকুক তার বাঁচার অধিকার নিয়ে। এই প্রত্যাশায় আমরা।

XS
SM
MD
LG