অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

শীতকাল আমাদের জন্য নানারকম উৎসব বার্তা বয়ে আনলেও সাথে নিয়ে আসে কিছু রোগের প্রকোপ । বড়দের পাশাপাশি যেগুলোতে বেশী আক্রান্ত হয় নবজাতক,শিশু এবং প্রবীণরা । মায়ের পেটে যে ভালবাসার উষ্ণতায় শিশু থাকে হঠাৎ পৃথিবীতে এসে তার কাছে সব গোলমেলে মনে হয় । সদ্য ভুমিস্ট একটি শিশুর প্রথম আশ্রয়স্থল হয় তার মা । তাই মায়ের নিরাপত্তা এবং যত্ন সবার আগে ।শীতে সন্তান প্রসবে কি কি সমস্যার সম্মুখীন হয় প্রসূতির তারই কিছুটা জানার চেষ্টা করেছি ডা.মিথিলা ইসলামের সাথে এর সাথে কথা বলে । তিনি বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু ও গাইনী বিশেষজ্ঞ ।

তিনি আমাদের বললেন,যেহেতু শীতে সাধারণত মানুষের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায় এবং প্রসূতি মায়েরা একটি বিশেষ অবস্থায় থাকেন তাই তাদের একটু বেশী সতর্ক থাকতে হবে । ঠান্ডা লেগে যেতে পারে,নিউমোনিয়া হতে পারে মায়ের । যাদের হাপানির সমস্যা আছে তাদের হাপানির টান আরো বেড়ে যেতে পারে ।
শুধু সন্তান ধারণ নয় । তার সাথে সাথে মাকে মেনে চলতে হয় কিছু নিয়ম-কানুন তার অনাগত সন্তানের ভালর জন্য । সঠিক সময়ে খাবার খাওয়া,যেহেতু মায়ের কাছ থেকেই সন্তান খাদ্য গ্রহন করে তাই পরিমাণের চেয়ে এক মুঠ বেশী খাবার খাওয়া ইচ্ছে না করলেও । খাবারে যেন পুষ্টির পরিমাণ সঠিক থাকে সেটা খুবই গুরুত্বপূর্ন বিষয়।

নবজাতকের সুস্থ্যতার ভিত তৈরীর কথা উঠলেই প্রথমেই আসে মায়ের কথা । মায়ের শাল দুধ থেকে শুরু করে সব যত্ন আত্তি মাকে’ই সাড়তে হয় । তাই নতুন মায়েদের জন্য পরামর্শ দিলেন ডা.মিথিলা ।
অনেকের ধারণা সন্তান জন্মের পর পরই শিশুকে মধু কিংবা চিনি মুখে দেয়া । এটা বাচ্চার ক্ষতিই করে । শাল দুধ হচ্ছে সবার আগে দেয়া প্রয়োজন এবং জন্মের ছয়মাস বয়স পর্যন্ত মায়ের বুকের দুধ চালিয়ে যেতে হবে সাথে আর কিছুরই দরকার পড়ে না ।


নবজাতকের অনেক রোগের মধ্যে নিউমোনিয়া একটি ভয়ংকর নাম । যা নবজাতকের প্রাণ কেড়ে নিতে পারে । ওষুধ সেবন কিংবা রোগ প্রতিকারের চেয়ে অনেক ভাল হয় যদি মা এবং পরিবারের সবাই মিলে নতুন অতিথিকে সুস্থ্যভাবে বেড়ে উঠার ক্ষেত্র প্রস্তুত করে দেয়া যায় । মানে হচ্ছে আগে থেকেই সাবধানতা অবলম্বন । সন্তান জন্মদানের একদম কাছাকাছি সময়ে মা কিছুটা অসুস্থ হয়ে যেতে পারে । তাই পরিবারে অন্য যারা থাকেন তাদের এই সময়টাতে খেয়াল রাখতে হবে মায়ের প্রতি । মূলত মায়ের প্রতি খেয়ালি অনাগত সন্তানের প্রতি খেয়াল রাখা । মা ঠিকমত খাবার,গোসল,ঘুম এবং মানিসিক ভাবে সুস্থ থাকছেন কিনা তা সবার দ্বায়িত্বের মধ্যেই পড়ে।
নবজাতকের জন্য পৃথিবীর বুকে একটি রোগমুক্ত সুস্থ্য-স্বাভাবিক পরিবেশ নিশ্চিত করা আমাদেরই দ্বায়িত্ব । তবেই না কাল সকালে দেখতে পাব বুদ্ধিদীপ্ত একটি উন্নত সমাজ ।
শরীফ উল হক,
ঢাকা রিপোর্টিং সেন্টার ।
সহযোগিতায় – ইউ এস এ আইডি এবং ভয়েস অব আমেরিকা ।


XS
SM
MD
LG