অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

‘আমার জীবন সংরক্ষন করার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ’


শরীফ উল হক
ঢাকা রিপোর্টিং সেন্টার
সহযোগিতায়-ইউএসএআইডি এবং ভয়েস অব আমেরিকা

‘আমার জীবন সংরক্ষন করার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ’। এই প্রতিপাদ্য নিয়ে ২০১৫ সালের ১৪ জুন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার উদ্যোগে বাংলাদেশেও পালিত হতে যাচ্ছে বিশ্ব রক্তদাতা দিবস।

বাংলাদেশে প্রতিবছর প্রায় ৬ লক্ষ ব্যাগ বিশুদ্ধ রক্তের প্রয়োজন হয়। যার বিপরীতে স্বেচ্ছা রক্তদাতা এবং বিভিন্ন ব্লাড ব্যাংকের মাধ্যমে সংগৃহীত হচ্ছে ৫ লক্ষ ৪০হাজার ব্যাগ রক্ত। স্বেচ্ছা রক্তদাতাদের কাছ থেকে রক্ত সংগ্রহকারী প্রতিষ্ঠান কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের পরিচালক(সমন্বয়),সুরাইয়া রহমান এর সাথে কথা বলে আমরা জানতে পারলাম বর্তমান চিত্র। বাকি ৬০ হাজার ব্যাগ রক্ত আসে পেশাদার রক্তদাতাদের কাছ থেকে। যার বিশুদ্ধতা নিতে সংশয় রয়েছে। তাই এই ৬০ হাজার ব্যাগ রক্ত ঘাটতি হিসেবে বিবেচনা করা যায়।

সময়মত রক্তের সরবরাহ না থাকায় মাতৃমৃত্যু সহ নানা ধরনের মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে। মানুষের মধ্যে একটি ভীতি কাজ করে রক্তদান নিয়ে। রক্তদানে আসলে ভয়ের কি কিছু আছে?
ঢাকা মেডিকেল কলেজের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মনিরুজ্জামান বললেন,কারা কখন রক্ত দিতে পারবেন। ১৮ থেকে ৬০ বছর বয়সী যেকোন মানুষ যার ওজন কমপক্ষে ৪৫ কেজি এবং রক্তচাপ স্বাভাবিক তিনি প্রতি চার মাস পর পর রক্ত দান করতে পারেন। একজন প্রাপ্ত বয়স্ক পুরুষের শরীরে প্রতি কেজিতে ৭৬ মিলি লিটার এবং মহিলার শরীরে প্রতি কেজিতে ৬৬ মিলি লিটার রক্ত থাকে। সেই হিসেবে ৫০ কেজি ওজনের একজন পুরুষের শরীরে ১৩০০ মিলি লিটার এবং একজন মহিলার শরীরে ৮০০ মিলি লিটার রক্ত থাকে। যেখানে রক্তদানে সংগ্রহ করা হয় মাত্র ৩৫০ থেকে ৪৫০ মিলি লিটার রক্ত।


তবে আশার কথা এইসব কুসংস্কার কেটে যাচ্ছে ধীরে ধীরে। তরুন প্রজন্মের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ লক্ষ্য করা যাচ্ছে স্বেচ্ছায় রক্তদানে।

রক্তদান শুধুমাত্র নিজের জন্য না। আপনার দেয়া রক্তে বেচে যেতে পারে একজন মানুষের জীবন। প্রানবন্ততা সাথে একটি জীবন বাঁচানোর তৃপ্তি। সুরাইয়া রহমান আরো বলেন,নিয়মিত রক্তদানে হৃদরোগ এবং হার্টের নানা জটিলতা থেকে বেঁচে থাকা সম্ভব। ধর্মীইয় দৃষ্টিকোণ থেকেও রক্তদান অনেক পূন্যের কাজ।

রক্ত গ্রহন এর আগে দরকার সংগ্রহিত রক্ত সঠিকভাবে পরীক্ষা করে নেয়া। দূষিত রক্ত গ্রহনে বেড়ে যায় কিছু মারাত্মক রোগের শংকা।

আপনার দেয়া এক ব্যাগ রক্ত বাঁচিয়ে দিতে পারে একটি মানুষের জীবন। হয়ত তার সাথে জড়িয়ে আছে একটি পরিবার,অনেক গুলো হাসিমুখ। নিজে নিয়মিত রক্ত দিন,রক্তদানে উৎসাহীত করুন অপরকে।

XS
SM
MD
LG