অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ইউরোপ সহ প্রায় সর্বত্র বিন লাদেন হত্যায় স্বস্তির নিঃশ্বাস


ইউরোপ সহ প্রায় সর্বত্র বিন লাদেন হত্যায় স্বস্তির নিঃশ্বাস

ইউরোপ সহ প্রায় সর্বত্র বিন লাদেন হত্যায় স্বস্তির নিঃশ্বাস

বিশ্বের নেতারা আল ক্বায়দা নেতা ওসামা বিন লাদেনের মৃত্যুতে তাদের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট জজৃ ডব্লিউ বুশ বিন লাদেনের মৃত্যুকে একটি অভুতপুর্ব সাফল্য বলে অভিহিত করেছেন। সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিন্টন বিন লাদেনের মৃত্যুকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ মূহুর্ত বলে বর্ণনা করেছেন।

আফগান প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাই বলেন যে প্রতিবেশি পাকিস্তানে বিন লাদেনের মৃত্যু কাবুলের এই দীর্ঘ দিনের অবস্থানকেই প্রমাণ করে যে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াই আসল জায়গাটা আফগানিস্তান নয়। তিনি বলেন তিনি আশা প্রকাশ করেন যে বিন লাদেনের মৃত্যুর পর সন্ত্রাসী কর্মকান্ড বন্ধ হবে এবং সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াই আর আফগানিস্তানের গ্রামে গ্রামে চালানো উচিৎ হবে না।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন বলেছেন যে আল ক্বায়দা নেতার মৃত্যুর এই খবর বিশ্বব্যাপী জনগণ স্বস্তির সঙ্গে গ্রহণ করবে।তিনি আরও বলেন যে এর মানে এই নয় উগ্রপপন্থিদের সন্ত্রাসী হুমকি থেকে আমরা মুক্ত। তাই সামনের সপ্তাগুলোতে আমাদের বিশেষ করে সাবধান থাকতে হবে।

ফরাসী প্রেসিডেন্ট নিকোলা সারকোজি বিন লাদেনের মৃত্যুকে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ক্ষেত্রে একটি বড় রকমের অভুত্থান বলে উল্লেখ করেন। ফরাসী পররাষ্ট্র মন্ত্রী অ্যালা ঝুপে বলেন বিশ্বকে আগেকার তুলনায় আরও সতর্ক হতে হবে।

এ দিকে যুক্তরাষ্ট্রে উল্লসিত জনগণ ওয়াশিংটনে হোয়াইট হাউজের সামনে এবং নিউ ইয়র্কের টাইম স্কয়ারে দাড়িয়ে উল্লাস ধ্বনি দেয়।

রবিবার রাতে প্রেসিডেন্ট ওবামা আনুষ্ঠানিকভাবে বিন লাদেনের মৃত্যুর খবর ঘোষণার পরপরই যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন শহরে জনগনের মধ্যে আনন্দ ও স্বস্তি দেখা দেয় ।

নিউইয়র্কে বসবাসকারী বাংলাদেশী আমেরিকান ফার্মাসিস্ট নাসির খান পল ও সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন মনে বলেন, ‘ওসামা বিন লাদেন ছিল এক সন্ত্রাসী, সে ইসলাম ধর্মকে যে ভাবে হাইজ্যাক করেছিল, তা যেন আমরা ফিরে পেয়েছি । তার মৃত্যুর খবরে আমরা আনন্দিত’ ।

নিউইয়র্ক থেকে এই প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন জাকিয়া খান

XS
SM
MD
LG