অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

রিপাবলিকান বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দু ছিল বিলোনেয়ার ব্যাবসায়ী ডনাল্ড ট্রাম্প


২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে, রিপাবলিকান দলের মোট ১৭ প্রার্থীর মধ্যে, ১০ জন প্রার্থী, বৃহষ্পতিবার রাতে প্রথম বিতর্ক অনুষ্ঠানে যোগ দেন। ওহাইও রাজ্যের ক্লিভল্যান্ডে এই বিতর্ক অনুষ্ঠিত হয়। এ নিয়ে ভয়েস অব আমেরিকার সংবাদদাতাদের প্রতিবেদন ভিত্তিক রিপোর্ট শোনাচ্ছেন সেলিম হোসেন।

যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হওয়ার প্রতিযোগিতায় রিপাবলিকান দলের শীর্ষ ১০ প্রার্থীর মধ্যে বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দু ছিল বিলোনেয়ার ব্যাবসায়ী ডনাল্ড ট্রাম্প। সম্প্রতি সকল জনমত জরিপে রিপাবলিকান দলে তিনিই সবচেয়ে এগিয়ে। তিনি তা বুঝতে পেরেছেন।

তবে তিনি রিপাবলিকান ভোটারদের মনে বেশ খটকা লাগিয়েছেন। কারন মঞ্চে বিতর্কে ঐ ১০ প্রার্থীর মধ্যে তিনিই একমাত্র লোক যিনি রিপাবলিকান দলের চুড়ান্ত প্রার্থীকে সমর্থন সহযোগিতার কোনো প্রতিশ্রুতি দেননি অথবা তৃতীয় দলের প্রার্থী হওয়ার বা না হওয়ার বিষয়ও ষ্পষ্ট করেননি।

ঐ বিতর্কে কিছু লক্ষনীয় বিষয় ছিল। সাবেক ফ্লোরিডা গভর্ণর জেব বুশ, উইসকনসিন গভর্ণর স্কট ওয়াকার, ওহাইও গভর্ণর জন ক্যাসিক সেখানে অনেকটা হোমটাউন সুবিধা পান, প্রচুর হাততালি পান। ডনাল্ড ট্রাম্প সবচেয়ে বেশী আক্রমণের শিকার হন কেনতাকি সেনেটর র‍্যান্ড পলের কাছ থেকে।

২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যপশ্চিমের রাজ্য আইওয়ায় ফেব্রুয়ারীতে অনুষ্ঠিত হবে রিপাবলিকান দলের প্রথম প্রাইমারী প্রার্থী বাছাই প্রতিযোগিতা। তার ছমাস আগে অনুষ্ঠিত প্রথম বিতর্কে ১০ শীর্ষ প্রার্থী বলেলন প্রেসিডেন্ট হলে কে কি করবেন আমেরিকানদের জন্যে, দেশের জন্যে, গোটা বিশ্বের জন্যে।

ষ্পষ্টভার্ষী রিয়েল এষ্টেট ব্যাবসায়ী ধনকুবের ডনাল্ড ট্রাম্পকে দিয়ে শুরু হয় বিতর্ক। রিপাবলিকান দলের সমর্থন না পেলে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে তিনি প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করবেন কি না এমন পশ্নে ডনাল্ড ট্রাম্প এ বিষয়ে এখনই কোনো প্রতিশ্রতি না দেয়ার কথা বলেন ।

কথা বলার সময় ট্রাম্প ছিলেন বেশ মারমুখী। নারীদের বিষয়ে তার আগের কিছু মন্তব্য যাতে তিনি নারীদেরকে "fat pigs," "dogs" and ‘slobs’ এসব বলেছিলেন সেসব তুলে ধরে তাতে তিনি দুখিত কিনা এমন প্রশ্নে তিনি দু:খ প্রকাশে অস্বীকৃতি জানান।

তিনি বলেন, “ঘটনাক্রমে আমি এক নম্বরে। আমি বিতর্ক জানিনা। আমি চাকুরীর সৃস্টি করতে জানি। কখনোই মঞ্চে বিতর্ক করিনি । সবাই আমাকে আক্রমন করেছ। আমার পেশা এটা নয়। আমি বড় ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান করেছি, সফল হয়েছি। কিন্ত আজ এখানে দাড়িয়েছি। সবার জন্যে কাজ করতে”।

ট্রাম্প বলেন, “বড় সমস্যা হচ্ছে এই দেশ রাজনৈতিকভাবে সঠিক হচ্ছে; এই রকম রাজণৈতিকভাবে নিখুঁত হবার মতো সময় আমার হাতে নেই। এবং সত্য বলতে কি, এই দেশেরও অতো সময় নেই”।

সাবেক ফ্লোরিডা গভর্ণর জেব বুশ বলেন তিনি অবশ্যই তার ভাই সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ ডাব্লিউ বুশ ও তার বাবা প্রেসিডেন্ট এইচ ডাব্লিউ বুশের চেয়ে ভিন্নভাবে নিজেকে উপস্থাপন করেবন।

জেব বুশ বলেন, “আমাকে তা অর্জন করতে হবে। হতে পারে আমার জন্যে তা কঠিন। ফ্লোরিডায় আমি রেকর্ড সৃষ্টি করেছি। আমি আমার বাবা ও ভাইয়ের জন্য গর্বিত”।

ভাই বুশের এক নীতির সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করে তিনি বলেন ২০০৩ সালে ইরাক অভিযান একটা ভুল সিদ্ধান্ত ছিল। তিনি প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাকে দোষ দেন সম্প্রতি ইসলামিক ষ্টেট জঙ্গী গোষ্ঠির উত্থানের জন্য।

জেব বুশ বলেন, “বারাক ওবামা প্রেসিডেন্ট হন এবং ইরাককে পরিত্যাক্ত করেন, ইরাক ছেড়ে চলে আসেন। আর তার ফলেই ISIS এর সৃষ্টি হয়। আমরা চলে আসায় সৃষ্ট শুন্যতায় এখন বিরাজ করছে ISIS এর খালিফাত। যার আয়তন ইন্ডিয়ানার সমান”।

বিতর্কে আংশ নেয়া প্রার্থীরা সমালোচনা করেন প্রেসিডেন্ট ওবামার ইসলামিক ষ্টেট বিরোধী প্রচারণার কৌশল। অনেকেই যুক্তরাষ্ট্রের সেনা শক্তি ব্যাবহারের আহবান জানান তাদেরকে প্রতিরোধে।

তবে, সেনেটর র‍্যান্ড পল বলেন ইসলামিক ষ্টেটের সঙ্গে যে বদ্রোহিরা লড়ছে তাদেরকে অর্থায়ন করার আগে যুক্তরাষ্ট্রের একটু ভাবা উচিৎ।

র‍্যান্ড পল বলেন, “কোটি কোটি ডলার দামের হাম্বি চালাচ্ছে তারা। আমাদের জন্যে তা অপমানকর। এটা বন্ধ করতে হবে। আমরা আমাদের শত্রুকে কেনো অর্থায়ন করবো। আল্লাহর দোহায় তা বন্ধ করুন”।

জাতিয় নিরাপত্তা সংস্থা’র আামেরকান ও বিদেশীদের টেলিফোন রেকর্ড সংগ্রহ নিয়ে বিতর্কের এক পর্যায়ে সেনেটর র‍্যান্ড পল ও নিউ জার্সি গভর্ণর ইক্রস ক্রিস্টি বেশ উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় করেন।

বিতর্কের সময় প্রায় সাড়ে ৪ হাজার দর্শক উপস্থিত থেকে হাততালি ও নানা শব্দ করে প্রার্থীদেরকে উৎসাহিত করেন। আরকানসার গভর্ণর মাইক হাকাবী, সেনেটর মার্কো রুবিও, ট্রেড ক্রুজ এবং নিউরো সার্জন বেন কার্সন বিতর্কে অংশ নেন।

১০ শীর্ষ প্রার্থীর বিতর্কের আগে রিপাবলিকান দলের বাকী ৭ প্রার্থী স্বল্প সময়ে এক বিতর্কে অংশ নেন। তারা সকলেই ডনাল্ড ট্রাম্পকেই নানাভাবে সমালোচনা ও আক্রমণ করেন। সাবেক ট্রেক্সাস গভর্ণর রিক পেরী অবৈধ অভিবাসি আগমন বন্ধে তার সীমান্তে ন্যাশনাল গার্ড নিয়োগের বিষয়ে ট্রাম্পের বরূপ মন্তব্যের সমালোচনা করেন। একমাত্র নারী প্রার্থী কার্লী ফিওরিনাও ট্রাম্পের সমালোচনা করেন।

এছাড়া এতে অংশ নেন দুই সাবেক গভর্ণর জর্জ প্যাটাকি, জিম গিলমোর, লুইজিয়ানার গভর্ণূর ববি জিন্দাল, সাউথ ক্যারোলাইনার সেনেটর লিন্ডসে গ্রাহাম ও সাবেক পেনসেলভেনিয়া সেনেটর রিক সান্তোরাম।

এখনই বলা যাবেনা; পরবর্তী বিতর্কে ট্রাম্প কতোটা প্রশ্নের মুখে পড়েন, অন্যান্য প্রার্থীরা তাকে প্রতিদ্বন্দ্বি হিসাবে কতোটা গুরুত্ব দেয় এসব বিষয় গুরুত্বপূর্ন।

এই বিতর্কের অন্যতম প্রধান একটি অংশ ছিল ডেমোক্রেটিক দলের প্রধান প্রার্থী হিলারী রডহ্যাম ক্লিনটনের সমালোচনা। পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকা অবস্থায় তার পররাষ্ট্র নীতি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন রিপাবলিকান প্রার্থীরা। সাউথ ক্যারোলাইনার সেনেটর লিন্ডসে গ্রাহাম বলেন, “সকল আমেরিকান যারা একটু ভালো জীবনযাপন আশা করেন, হিলারীকে ভোট দেবন না। তাহলে আপনাদের আশা পুরন হেব না”।

ফক্স নিউজ জাতীয় জরিপের ভিত্ততে এই ১০ প্রার্থী ঠিক করে বিতর্কের জন্য।

এদিকে ডেমোক্রেটিক ন্যাশনাল কমিটি ঘোষণা করেছে ১৩ই ডিসেম্বর নেভাদায় তাদের প্রার্থীদের নিয়ে বিতর্ক করার।

XS
SM
MD
LG