অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

হ্যালো ওয়াশিংটন : দক্ষিণ এশিয়ায় উগ্রবাদ: দেশী ও আন্তর্জাতিক যোগসুত্র


আমাদের আজকের এই কল ইন শোর বিষয় হচ্ছে দক্ষিণ এশিয়ায় উগ্রবাদ: দেশী ও আন্তর্জাতিক যোগসুত্র। হাল আমলের বিশ্বে সম্ভবত সব চেয়ে বেশি ব্যবহৃত শব্দগুলো হচ্ছে সন্ত্রাসবাদ , জঙ্গিবাদ , উগ্রবাদ এবং বলাই বাহুল্য এ সব শব্দের সব ক’টি নেতিবাচক অর্থে ব্যবহৃত হচ্ছে। এই শতকের সূচনা হয়েছিল যে সম্ভাবনা এবং আশা নিয়ে , তার অনেকটাই এখন ম্লান হয়ে গেছে। আজকের অনুষ্ঠানে উগ্রবাদ শব্দটি আমরা ব্যবহার করছি , অনেকটা সামূহিক অর্থেই , যেখানে তাত্বিক দর্শন এবং সন্ত্রাস বা জঙ্গি তৎপরতার বিষয়টি চলে আসছে একই সঙ্গে। তবে সাধারণ ভাবে এই শব্দগুলো পরস্পরের পরিপূরক হিসেবে ও ব্যবহৃত হয়। উগ্রবাদের তৎপরতা থেকে বাংলাদেশও মুক্ত নয় । সেখানে এরই মধ্যে এর শিকার হয়েছেন অনেকেই ।

সম্প্রতি সিঙ্গাপুর থেকে ২৬ জন বাংলাদেশীকে আইসিস এবং আল ক্বায়দার মতো সংগঠনের সঙ্গে নিজ দেশের সরকার পতনের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকার অভিযোগে বহিষ্কার করা হয়। বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনী বলছে তারা বস্তুত দেশী সন্ত্রাসী সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সঙ্গে সম্পৃক্ত। আবার কেউ কেউ বলছেন যে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সঙ্গে আকিস বা আল ক্বায়দা ইন ইনডিয়ান সাব কন্টিনেন্টের সম্পর্ক রয়েছে। কেবল বাংলাদেশ নয় দক্ষিণ এশিয়ার অন্তত তিনটি দেশ আফগানিস্তান , পাকিস্তান এবং ভারতেও দেশজ ও আন্তর্জাতিক উগ্রবাদী চক্র তৎপর ।

আপনাদের জিজ্ঞাসা আর আমাদের অতিথী বিশেষজ্ঞদের জবাবের এই আসরে আজ প্যানেল সদস্য হিসেবে টেলি – সম্মিলনী লাইনে যোগ দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটির গভর্ণমেন্ট এন্ড পলিটিক্স বিভাগের প্রধান , জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিষয়ে বিভিন্ন গবেষণা গ্রন্থের লেখক অধ্যাপক আলী রীয়াজ , আরও রয়েছেন , বাংলাদেশের চিন্তক গোষ্ঠি Bangladesh Enterprise Institute এর গবেষক এবং বিশিষ্ট নিরাপত্তা বিশ্লেষক অবসরপ্রাপ্ত এয়ার কমোডর ইশফাক ইলাহি চৌধুরী ।

XS
SM
MD
LG