অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

দক্ষিণ এশিয়ায় উগ্রবাদ : শান্তির প্রতি অব্যাহত হুমকি

  • আনিস আহমেদ

আজকের এই কল ইন শো হ্যালো ওয়াশিংটন এর বিষয় হচ্ছে দক্ষিণ এশিয়ায় উগ্রবাদ : শান্তির প্রতি অব্যাহত হুমকি । আপনাদের জিজ্ঞাসা আর আমাদের বিশেষজ্ঞদের জবাবের এই আয়োজনে আজ যে সব বিশেষজ্ঞরা আমাদের সঙ্গে টেলিসম্মিলনী লাইনে যোগ দিয়েছেন , তাঁরা হচ্ছেন :

ঢাকা থেকে , ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক , ড ইমতিয়াজ আহমেদ ।
কোলকাতা থেকে , মাওলানা আবুল কালাম আজাদ্ ইনস্টিটিউট অফ সাউথ এশিয়া স্টাডিজ এর পরিচালক অধ্যাপক ড শ্রী রাধা দ্ত্ত ।

আরো যোগ দিয়েছেন , করাচি থেকে বিশিষ্ট সংবাদ বিশ্লেষক ও ভাষ্যকার মাশকাওয়াথ আহসান ।

আজকের যে বিষয় , উগ্রবাদ এর সংজ্ঞা ও স্বরূপ নিয়ে বোধ করি বিতর্ক নেই কোন । তাত্বিক হোক , ব্যবহারিক হোক সব অর্থেই উগ্রবাদ পরিত্যাজ্য। এই উগ্রবাদের নানান রূপ রয়েছে , ভাষাগত , গোষ্ঠিগত এবং এই চলমান সময়ে যেটি সব চেয়ে প্রধান রূপ ধারণ করেছে , সেটি হচ্ছে ধর্মীয় উগ্রবাদ। আফগানিস্তান থেকে বাংলাদেশ পর্যন্ত দক্ষিণ এশিয়ার সাতটি দেশেই উগ্রবাদ রয়েছে , কোন না কোন ভাবে।

এটিকে কেবলই হান্টিংটনের ক্ল্যাশ অফ সিভিলাইজেশান বা সভ্যতার সংঘাত বলে অত সরলকৃত সংজ্ঞায় সংজ্ঞায়িত করা যাবে না , এটিকে অমুসলিমদের প্রতি মুসলিমদের সন্ত্রাস বলেও সীমিত করা যায় না। এই তো সম্প্রতি গোটা রমজান মাসেই আমরা লক্ষ্য করেছি , এমন কী ঈদের দিনেও যে পাকিস্তানে মুসলিম উগ্রবাদীদের হাতেই নিহত হয়েছেন , ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা । বাংলাদেশে ২০০৪-০৫ সালে আমরা জঙ্গিবাদের যে উত্থান লক্ষ্য করেছি এবং সাম্প্রতিক সময়েও কোন কোন স্বীকৃত রাজনৈতিক দল যে তান্ডব ঘটিয়েছে , পুলিশকে পিটিয়ে হত্যা করা কিংবা যাত্রীসহ জ্বলন্ত বাসে আগুন দেওয়া এ গুলো উগ্রবাদেরই নিদর্শন। গুজরাতে হিন্দু মুসলিম দাঙ্গার সময়ে , ট্রেনে আগুন ধরিয়ে যাত্রীদের পুড়িয়ে মারা , কিংবা বাংলাদেশের পার্বত্যাঞ্চলে আদিবাসীদের ওপর নির্যাতন , বৌদ্ধ মন্দিরে আক্রমণ এ সব কিছুই কোন না কোন ভাবে উগ্রবাদেরই বিয়োগান্তক নিদর্শন। আজকের অনুষ্ঠানে প্রশ্নোত্তরের মাধ্যমে এ সব বিষয়ের দিকেই আমরা আলোকপাত করবো। এবার তা হলে শুরু করা যাক প্রশ্ন –উত্তরের পালা।

XS
SM
MD
LG