অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

হ্যালো ওয়াশিংটন: বিষয় "সংবাদ স্বাধীনতা”।

সুপ্রিয় শ্রোতা- ৩রা মে ছিল আন্তর্জাতিক সংবাদ স্বাধীনতা দিবস। সংবাদ স্বাধীনতা- বিষয়টির অন্তর্ভুক্ত- ব্যাপক অর্থে খবরের কাগজ টেলিভিশন রেডিওসহ সকল গণমাধ্যম। এসব গণমাধ্যমে যারা কাজ করছেন তারা কতোটা স্বাধীনভাবে কাজ করছেন অথবা ওইসব গণমাধ্যম কতৃপক্ষই বা কতেটুকু স্বাধীন এইসব নিয়ে আজ আলোচনা হয়।

আলোচনা হয়; তথ্য প্রযুক্তির সর্বাধুনিক এই সময়ে সামাজিক মাধ্যম যেমন ফেসবুক, টুইটার, গুগল, ইউটিউব, ইনস্টাগ্রাম, ফ্লিকারসহ অন্যান্য সাইটগুলোও গণমাধ্যম; তবে সেগুলোর খবর কতটা বস্তুনিষ্ঠ আর সেগুলো কতোটা নির্ভরযোগ্য এসব বিষয় নিয়ে।

আলোচনায় যোগ দেন:-ঢাকা থেকে বিশিষ্ট সাংবাদিক, লেখক, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতার শিক্ষক আফসান চৌধুরী। কোলকাতা থেকে যোগ দেন দি টেলিগ্রাফের দিল্লি ব্যুরো প্রধান জয়ন্ত রায় চৌধুরী।

আলোচনা শুরুর আগে শ্রোতাদের জন্যে যাতে বিষয়টি সহজ হয় সেজন্য আফসান চৌধুরী আপনার কাছে জানতে চাইবো খুব সহজ করে বলবেন গণমাধ্যম আমরা কোন কোন প্রতিষ্ঠানকে বলবো; মানে খবরের কাগজ টিভি রেডিও ছাড়া। সোশাল নেটওয়ার্ক উইকিলিকস উইকিপিডিয়িা গুগুল সার্চ ইয়াহু এবং সেলফোনকে কি গনমাধ্যমের আওতায় আনবেন?

আসুন শোনা যাক আলোচনা।

XS
SM
MD
LG