অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ব্রিটেনের ইউরোপীয় ইউনিয়ন ত্যাগ: প্রভাব ও প্রতিক্রিয়া


আমরা সকলেই জানি যে গত সপ্তায় অনুষ্ঠিত গণভোটে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে আসা অর্থাৎ ব্রিক্সেটের পক্ষে রায় দিয়েছে ব্রিটেন। এই রায়কে যুগান্তকারী ঘোষনা বলা হচ্ছে। যুগান্তকারী বোধ হয় উভয় অর্থেই, ইতিবাচক ও নেতিবাচক। এই ঘটনার প্রভাব ও প্রতিক্রিয়া একদিকে যেমন স্বল্পমেয়াদী অন্যদিকে সম্ভবত দীর্ঘমেয়াদীও বটে। তাৎক্ষনিক ভাবে লক্ষ্য করা গেছে, পাউন্ডের মুদ্রামান কমে গেছে, ব্রিটেনের ব্যবসা বানিজ্যে এর প্রতিকূল প্রভাব পড়েছে। ব্রিটেনের রাজনীতিতেও নানান প্রতিক্রিয়া হচ্ছে। কেবল মাত্র প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের পদত্যাগের মধ্যেই এই প্রতিক্রিয়া সীমিত থাকেনি; এর প্রতিক্রিয়া পড়েছে রক্ষনশীল দলের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে। বলা হচ্ছে অতি ডানপন্থীরা এখন প্রাধান্য বিস্তার করতে চলেছেন। সেই ভাবে শ্রমিক দলের রাজনীতিতেও অস্থিরতা রয়েছে নের্তৃত্ব নিয়ে। অনেকেই বলছেন যে ব্রেক্সিট, ব্রিটেনের সমাজ, রাজনীতি ও অর্থনীতিতে এনেছে নানান পরিবর্তন।

আজকের হ্যালো ওয়াশিংটনে আমাদের প্যানেল সদস্যরা এ সম্পর্কে শ্রোতাদের প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন। বিজ্ঞ পর্যালোচকদের মধ্যে রয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় স্টেট ইউনিভার্সিটির গভর্ণমেন্ট এন্ড পলিটিক্স বিভাগের প্রধান এবং বিশিষ্ট লেখক-গবেষক অধ্যাপক আলী রীয়াজ, রয়েছেন ইন্ডিয়ান স্ট্যাইটস্কাল ইন্সটিটিউটের অর্থনীতির অধ্যাপক দীপঙ্কর দাশগুপ্ত এবং যুক্তরাজ্যের স্কটল্যান্ডে গ্লাসগো ইউনিভার্সিটির অর্থনৈতিক বিষয়ক গবেষক ড. জাহিদুল কাই্য়ুম। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালন করেছেন আনিস আহমেদ।

XS
SM
MD
LG