অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আজ মহালয়া। পিতৃপক্ষের অবসান। আগামীকাল থেকে দেবীপক্ষের সূচনা। শাস্ত্রমতে দেবীপক্ষের আগের কৃষ্ণা প্রতিপদে মর্ত্যধামে নেমে আসেন পিতৃপুরুষরা৷ উত্তরসূরিদের কাছ থেকে জল পাওয়ার অপেক্ষা করেন। মহালয়ার দিন অমাবস্যায় তাঁদের উদ্দেশ্যে জলদানই তর্পণ৷ পুণ্যতিথিতে তাই গঙ্গার ঘাটে ঘাটে আজ সকাল থেকেই ছিল মানুষের ভিড়৷ কেউ এসেছেন পুণ্যলাভের আশা নিয়ে। কেউ বা পুণ্যতিথির সাক্ষী থাকতে।

গঙ্গার ঘাট গুলিতে সকাল থেকে টহল দেয় কলকাতা পুলিশ ও রিভার ট্রাফিক পুলিশ। সতকর্তামূলক ব্যবস্থা হিসাবে মোতায়েন রাখা হয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীকেও।

দেবী আসছেন ঘরে। তারই প্রস্তুতি তুঙ্গে। সাধারন বাঙালির দিনটা শুরু হয়েছে খুব ভোরে-রেডিওতে কান পেতে। আকাশবাণীতে মহিষাসুরমর্দিনী…বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্রর সম্মোহক কন্ঠে চণ্ডীপাঠ- ‘যা দেবী সর্বভূতেষু মাতৃরুপেন সংস্থিতা’। ভোরের টুপটাপ ঝরে পড়া শিশির, শিউলির গন্ধ মাখা উঠোন, কাশবনে হিল্লোলে উৎসবের হাতছানি-‘বাজল তোমার আলোর বেণু’। কলকাতা থেকে পরমাশিষ ঘোষ রায়।

XS
SM
MD
LG