অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

খোদ সংবিধানেই গো-রক্ষার বাঞ্ছনীয়তার কথা বলা রয়েছে-অধিকাংশ রাজ্যেই গো-হত্যা নিষিদ্ধ


গোটা উত্তর ভারত জুড়ে তথাকথিত গো-রক্ষকদের দাপাদাপিতে জীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছিল দলিত ও মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষদের। প্রধানমন্ত্রি নরেন্দ্র মোদি এ বার প্রকাশ্য সমাবেশে বলে দিলেন, এদের কাজকর্মে তিনি ক্রুদ্ধ। এদের অনেকেই আদতে সমাজবিরোধী। সন্দেহ নেই, স্বয়ং প্রধানমন্ত্রির এই অসন্তোষ-বার্তা বিজেপি-র মধ্যে সাড়া ফেলে দিল। কেননা, গো-জাতি সম্পর্কে ভারতীয় হিন্দুদের দীর্ঘ দুর্বলতার ভিত্তিতেই খোদ সংবিধানেই গো-রক্ষার বাঞ্ছনীয়তার কথা বলা রয়েছে। অধিকাংশ রাজ্যেই গো-হত্যা নিষিদ্ধ। এমন দেশে প্রধানমন্ত্রির পক্ষে এমন বার্তা দেওয়া কিন্তু সহজ নয়।অন্যদিকে, ক্রমাগত দলীয় বিবাদ আর নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে তোলাবাজীর অভিযোগে বিরক্ত মুখ্যমন্ত্রি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একের পর এক দলীয় বৈঠকে কড়া বার্তা দিতে শুরু করেছেন ও সবের বিরুদ্ধে। এমন চলতে থাকলে সাধারণ মানুষ নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের ওপর বিরূপ হতে শুরু করবেন, এমন আশঙ্কা তো রয়েছে-ই। প্রধানমন্ত্রিও বুঝতে পারছেন, গো-রক্ষকদের অত্যাচার চলতে থাকলে আগামী নির্বাচনগুলিতে মুসলিম আর দলিত সম্প্রদায়ের সমর্থন বিজেপি-র কাছ থেকে সরে যাবে। তাই শক্ত হাতে রাশ টানা।গৌতম গুপ্তের রিপোর্ট:

XS
SM
MD
LG