অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ভারত সরকারের অর্থনৈতিক সংষ্কার কর্মসূচী



ভারতে , সরকার ঢালাওভাবে বেশ কিছু অর্থনৈতিক সংষ্কার চালু করতে চলেছে, রাজনৈতিক দিক দিয়ে প্রচন্ড বিরোধিতা সত্বেও । এসব সংষ্কারের ফলে দেশের গতি মন্থর অর্থনীতিতে প্রাণসঞ্চালন হবে এবং নীতি নির্ধারণের ক্ষেত্রে সরকারের জড়তার অভিযোগ থেকে সরকার হয়তোবা মুক্তি পাবে – মনে করছেন কেউ কেউ । বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছেন ওয়াশিংটন ডিসি’র জর্জটাউন য়ুনিভার্সিটির অর্থনীতির শিক্ষক প্রফেসার অধীপ চৌধুরী । ভয়েস অফ এ্যামেরিকার বাংলা বিভাগের সরকার কবীরূদ্দীনের সঙ্গে টেলিফোনে ।
বিশ্বখ্যাত সূপারমার্কেট চেইন ওয়ালমার্ট-টেসকো প্রবেশাধিকার দান এসব সংস্কেরর মধ্যে শামিল থাকছে – তারা ভারতে দোকান খুলে পসরা সাজিয়ে বসার সূযোগ পাবে । এটাকে অনেকে অত্যন্ত কড়া সরকারী পদক্ষেপ বলে মনে করছেন । কিন্তু ডক্টর চৌধুরী এ ধরনের মতভঙ্গির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে না । বললেন , এধরনের পদক্ষেপের প্রতিক্রিয়া কি হতে পারে ?
দেশি বিমান সংস্থার অংশিদারিত্বে বিদেশি এয়ারলাইনকে সুযোগ দেওয়া , ব্রডকাস্টিংয়ের ক্ষেত্রে বিদেশি সংস্থাকে ব্যবসার সূযোগ করে দেওয়া – এসব কতোখানি সম্ভব হবে এই মুহুর্তে তা বলা মুশকিল , তবে এয়ারলাইনের বিষয়টিতে ভারতে অসরকারী বিমান সংস্থা কিংফিশারে বা এমোনকি সরকারী বিমান পরিবাহন সংস্থা এয়ার ইন্ডিয়ারও ফায়দা হতে পারে । বিশেষ করে যখন কিনা জ্বালানী-ইন্ধনের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে বিস্তর প্রতিবাদ হচ্ছে , সে পরিস্থিতিতে , পশ্চিম বঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপ্যাধ্যায়ের দৃঢ় অবস্থানের বিষয়টি পর্যালোচনা করে অধীপ চৌধুরী মত প্রকাশ করেন যে এ যাবত বিভিন্ন বিষয়েই মমতা বন্দোপাধ্যায়কে লাগাতার বিরোধিতা করতেই দেখা গিয়েছে ।
XS
SM
MD
LG