অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ভোপাল সেন্ট্রাল জেল থেকে পলাতক সিমি'র ৮ জন জঙ্গিকেই হত্যা করেছে পুলিশ


মধ্যপ্রদেশের ভোপাল সেন্ট্রাল জেল থেকে পলাতক নিষিদ্ধ সংগঠন সিমি'র ৮ জঙ্গিকেই হত্যা করেছে পুলিশ।

সরকারী সূত্রের খবর, জেল থেকে পালিয়ে ১০ কিলোমিটার দূরে আচারপুরা গ্রামে যায় জঙ্গিরা। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে গোটা গ্রাম ঘিরে ফেলে পুলিশ। জঙ্গিদের আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেওয়া হয়। তখনই গুলি চালায় তারা। এরপরই ৮ জঙ্গিকে পাল্টা গুলি চালিয়ে হত্যা করা হয়।

গতকাল রাত ২টা থেকে ৩ টার মধ্যে ভোপাল সেন্ট্রাল জেল থেকে পালায় ৮ জঙ্গি। পালানোর সময় জেলের প্রধান রক্ষী রমাশঙ্করকে গলা কেটে খুন করে তারা। স্টিলের থালা ও গ্লাস দিয়ে রক্ষীর গলা কেটে খুন করা হয়। এরপর বিছানার চাদর পাকিয়ে দড়ি বানিয়ে জেলের পাঁচিল টপকায় জঙ্গিরা।

মধ্যপ্রদেশ ও মহারাষ্ট্রের বাসিন্দা ৮ সিমি জঙ্গির বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার অভিযোগ রয়েছে। এই ঘটনায় প্রশ্নের মুখে জেল কর্তৃপক্ষের ভূমিকা। মধ্যপ্রদেশ সরকারের কাছে বিস্তারিত রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহ। সাসপেন্ড করা হয়েছে জেল সুপারসহ সমস্ত আধিকারিকদের। মধ্যপ্রদেশ ও মহারাষ্ট্রের বাসিন্দা এই ৮ সিমি জঙ্গির বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার অভিযোগ রয়েছে। জঙ্গিদের পালানোর ঘটনায় প্রশ্নের মুখে পড়েছে জেল কর্তৃপক্ষের ভূমিকা।

ভোপাল কেন্দ্রীয় সংশোধনাগার ভেঙে ৮ সিমি জঙ্গির পালানোর জেরে অ্যাডিশনাল ডিরেক্টর জেনারেল অফ পুলিশকে সরিয়ে দিল শিবরাজ সিংহ চৌহান প্রশাসন। এডিজি সুশোভন বন্দ্যোপাধ্যায়ের জায়গায় তারা নিয়ে এল সুধীর শাহিকে। মধ্যপ্রদেশ ক্যাডারের ১৯৮৮ ব্যাচের আইপিএস অফিসার সুধীর ব্যাপম দুর্নীতির তদন্ত করছেন। ওই তদন্তে গঠিত স্পেশাল টাস্ক ফোর্সের প্রধান হিসেবে ৩ বছরে ২,০০০-এরও বেশী সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করেছেন তিনি। ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা র-এও তিনি দীর্ঘদিন কাজ করেছেন।

মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, প্রাক্তন ডিজিপি নন্দন দুবে এই জেল ভাঙার ঘটনার তদন্ত করবেন। কলকাতা থেকে পরমাশিষ ঘোষ রায়।

XS
SM
MD
LG