অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী অভিবাসী সম্পর্কে সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ


জাতিসংঘের উদ্যোগে ১৮ই ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক অভিবাসন দিবস পালিত হচ্ছে। বিশ্বব্যাপী অভিবাসীদের অবদান ও প্রচেষ্টা এবং তাদের অধিকারের প্রতি স্বীকৃতির জন্যে জাতিসংঘ এই দিনটি সুনির্দিষ্ট করেছে । গত ৩৬ বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে বসবাস করছেন বিশিষ্ট সাংবাদিক সৈয়দ মোহাম্মাদ উল্লাহ । ভয়েস অফ আমেরিকার সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ যুক্তরাষ্ট্রে দক্ষিণ এশীয় , বিশেষত বাংলাদেশী অভিবাসীদের বিষয়ে আলোকেপাত করেছেন। সৈয়দ মোহাম্মাদ উল্লাহ ১৯৮৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রে আসেন সাংবাদিক হিসেবে। তার পর এখানে তিনি সাংবাদিকতা করেছেন দীর্ঘ দিন। নিউ ইয়র্কে প্রথম বাংলা পত্রিকা সম্পদনা করেছেন সৈয়দ মোহাম্দুল্লাহ। যুক্তরাষ্ট্রে দক্ষিণ এশীয়দের অভিবাসনের কারণ , এখানে প্রাপ্ত সুযোগ এবং অভিবাসীরা যুক্তরাষ্ট্র এবং নিজ দেশের জন্যে কতটুকু অবদান রাখছেন সে কথাও তিনি উল্লেখ করেন। এ দেশের কাছ থেকে তাঁর কোন প্রত্যাশা ছিল না কারণ প্রচলিত অর্থে তিনি ঠিক অভিবাসী নন তবে তিনি পরিতৃপ্ত একারণে যে তাঁর ছেলেরা এখানে উচ্চশিক্ষা পেয়েছে, ভাল সুযোগ পাচ্ছে।



সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ তাঁর বাঙালিত্ব সত্বেও যুক্তরাষ্ট্রের সমাজ ও সংস্কৃতির সাথে খাপ খাইয়ে নেওয়া প্রসঙ্গে বলেন যে প্রথম প্রজন্মের অভিবাসীরা চেতনায় বসবাস করেন স্বদেশে কিন্তু যারা কিছুটা শিক্ষিত তারা আবার ভারসাম্য রক্ষা করেন এই দুই সংস্কৃতির মধ্যে। তবে পরবর্তী প্রজন্ম যে দ্রুতই এখানকার পরিবেশ ও সংস্কৃতির সঙ্গে নিজেদের মানিয়ে নিচ্ছে। সৈয়দ মোহাম্মদ উল্লাহ আরও বলেন যে যুক্তরাষ্ট্রে প্রদত্ত সুযোগ সুবিধার কারণে এ দেশে বহু দক্ষিণ এশীয় অভিবাসীরা এসছেন। তিনি বলেন যে বৃহত্তর অর্থে দক্ষিণ এশিয়া এবং সুনির্দিষ্ট ভাবে বাংলাদেশের অভিবাসীরা যেমন যুক্তরাষ্ট্রে তেমনি তাদের নিজেদের অঞ্চলেও অবদান রাখছে।
XS
SM
MD
LG