অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

মা’কে বাঁচিয়ে না রাখলে ভাষা ও থাকবে না : আনোয়ার আকাশ


একুশে ফেব্রুয়ারির যে দাবি এক সময়ে রাষ্ট্রিক স্বীকৃতি পায়নি , বাঙালির সৌভাগ্য যে আজ তা আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভ করেছে। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের এই দিনটি এখন আর কেবল বাঙালির শহীদ দিবস নয় , এখন তা জাতিসংঘ স্বীকৃত আন্তর্জাতিক মার্তৃভাষা দিবস। পৃথিবী ব্যাপী প্রান্তিক ভাষাগুলোর অধিকার আদায় এবং স্বীকৃতির দিন হিসেবে একুশে ফেব্রুয়ারির এই মর্যাদায় বাংলাদেশের মানুষ গর্বিত।

বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি চর্চা এখন আর কেবল বাংলাদেশের মধ্যে সীমিত নয় , এই আগ্রহ এবং উদ্যোগ ছড়িয়ে পড়েছে বাংলাদেশের বাইরেও, বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে। সেই উদ্যোগের এই ফল হচ্ছে অস্ট্রেলিয়ার বাংলা একাডেমি । দশ বছর আগে সিডনিতে প্রতিষ্ঠিত এই বাংলা একাডেমি এখন আর সিডনিতেই সীমা বদ্ধ নয়, অস্ট্রলিয়ার বিভিন্ন শহরে ছড়িয়ে পড়ছে। এই সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা আনোয়ার আকাশ , ভয়েস অফ আমেরিকার আনিস আহমেদকে দেওয়া এক একান্ত সাক্ষাৎকারে বলছিলেন যে প্রবাসে বেড়ে ওঠা আগামি প্রজন্মকে বাংলা , ভাষা ও সংস্কৃতি সম্পর্কে , এর গৌরবময় ইতিহাস সম্পর্কে সজাগ করার জন্যই মূলত এই উদ্যোগ নেওয়া । তিনি বলেন যে অস্ট্রেলিয়ার বাংলা একাডেমি এবং বাংলাদেশের বাংলা একাডেমি দুটি আলাদা প্রতিষ্ঠান কিন্তু পরস্পরের সম্পর্ক পরিপূরক এবং সহযোগিতা মূলক। অস্ট্রেলিয়ার বাংলা একাডেমির প্রসার ও প্রচারের জন্য আনোয়ার আকাশ বাংলাদেশ এবং অস্ট্রেলিয়ার বুদ্ধিজীবিদের সহযোগিতার কথা উল্লেখ করেন। বিশেষত তিনি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন , বাংলাদেশের প্রথিতযশা বুদ্ধিজীবি অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের প্রতি যাঁর প্রেরণায় এই সংগঠন প্রাণিত হয়েছে।

আনোয়ার আকাশ গত দশবছরে তাঁদের কার্যক্রমের প্রসার প্রসঙ্গে বলেন যে তাঁরা অনেকগুলো প্রকল্প পরিচালনা করছেন , যেমন কোয়ালিটি ইন হাইয়ার এডুকেশান , স্টুডেন্ট অ্যাম্বাসাডর লিডারশীপ প্রোগ্রাম, মাই ল্যাংগুয়েজ মাই ফ্রিডম , অনুবাদ ও দোভাষি পরিষেবা , উদ্যোক্তামূলক কার্যক্রম ইত্যাদি। তিনি বিশেষত স্টুডেন্ট অ্যাম্বাসাডর লিডারশীপ প্রোগ্রাম প্রসঙ্গে বলেন যে এই কর্মসূচির অধীনে তিনি বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে থাকা বাঙালি শিক্ষার্থীদের তাদের মার্তৃভূমি ও মার্তৃভাষার সঙ্গে সম্পৃক্ততার উদ্যোগের কথা বলেন।

জাতিসংঘের হিসেব অনুযায়ী বর্তমানে বিশ্বব্যাপী ছয় হাজার ভাষার মধ্যে প্রায় অর্ধেক ভাষাই এখন বিলুপ্তির পথে। অস্ট্রেলিয়ায়ও আদিবাসীদের ভাষা একেবারে প্রান্তিক পর্যায়ে । এ প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে আনোয়ার আকাশ বলেন যে এ কারণেই তাঁরা মাই ল্যাংগুয়েজ মাই ফ্রিডম প্রকল্পটি চালু করেছেন। যেখানে অস্ট্রেলিয়ার বাংলা একাডেমির মিডিয়া পার্টনার হিসেবে রয়েছে সেখানকার অষ্ট্রেলিয়ার ন্যাশনাল রেডিও সহ কয়েকটি বেতার প্রতিষ্ঠান । মূল ধারা স্কুলগুলোকেও অস্ট্রেলিয়া বাংলা একাডেমি পার্টনার শীপে আনছে। তিনি বলেন ভাষার আদি জায়গাটা হচ্ছে মা । মা’কে আমরা যদি বাঁচিয়ে না রাখি তা হলে , ভাষা থাকবে না। সে কারণেই তাঁদের একটি প্রচার অভিযান হচ্ছে , মা আমি তোমাকে ভালোবাসি। আনোয়ার আকাশ বলেন ভাষার এই গুরুত্ব যদি প্রত্যেকটা মানুষ বুঝতে পারেন , বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বাঙালিরা যদি এগিয়ে আসেন তা হলে ভাষা দিবসটাকে , তা হলে এই ভাষা দিবসটাকে আমরা সত্যিকার অর্থে তাৎপর্যপূর্ণ করে তুলতে পারবো।

XS
SM
MD
LG