অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ইরাকের সূন্নী ধর্মাচার অনূসারী ভাইস প্রেসিডেন্ট তারিক আল হাশেমী পালিয়ে রয়েছেন তূরস্কে – বলেছেন , ২ হাজার পাঁচ ও ২ হাজার এগারো মধ্যবর্তি সময়ে দেড় শতাধিক বোমাবাজি – হত্যাকান্ড ও অন্যান্য হামলা ঘটনায় সংশ্লিষ্টতার দায়ে তাঁর বিরূদ্ধে আনা খুনের মামলায় তাঁর মৃত্যুদন্ডাদেশ রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত , তাঁর দীর্ঘ দিনের দুশমন শিয়া ধর্মাচার অনুসারী প্রধানমন্ত্রী নূরী আল মালিকীর রাজনৈতিক চাল একটা । রবিবার তাঁর বিরূদ্ধে মৃত্যুদন্ডের এ রায় ঘোষনা এবং ইরাক জুড়ে ১৩টি অঞ্চলে পরিচালিত হামলা অভিযানে শতাধিক মানুষের মৃত্যু নিয়ে তোলপাড় হচ্ছে বিশ্বজুড়ে । ডিসেম্বরের পর যেখানে স্থিতিশিলতা ফিরবে দেশটিতে মনে করা হয়েছিলো , তা না হয়ে এহেন পরিস্থিতি কেন , কারা করছে – জিজ্ঞাসা দেখা দিচ্ছে – স্বভাবত:ই আঙ্গূল উঠছে আল কায়েদার পানে । পরিস্থিতি বিশ্লেষন করেন নিউ ইয়র্ক প্রবাসী , প্রবীন সাংবাদিক-সবাদ ভাস্যকার সৈয়দ মোহাম্মদউল্লাহ । যুক্তরাষ্ট্র বাহিনী ইরাক থেকে হঠে যাবার পর সহিংসতা বেশ কিছুটা কমেছিলো কিন্তু ইরাকের আল কায়েদারা , ২ হাজার সাতে যেসব অঞ্চল থেকে তাদেরকে খেদানো হয়েছিলো , প্রধানত: সূন্নী অধ্যুষিত সেসব এলাকায় ফিরে আসার ব্যাপারে প্রত্যয় দৃপ্ত আচরণ দেখানো আরম্ভ করে – সহিংসতা আবার বেড়ে ওঠে । এ প্রবনতা ইরাকের নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে শূন্যের অবস্থানে ফিরিয়ে নিয়ে নিয়ে যেতে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে ।
সৈয়দ মোহাম্মদউল্লাহ মনে করেন , শিয়া –সূন্নীর এ ফাসাদ ক্রমশ:ই বিশ্বের মূসলমান এলাকাগুলোয় এখন বেশিরকম ছড়িয়ে পড়ছে ।
XS
SM
MD
LG