অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ইসলাম অনুসারি জঙ্গিরা ইরাকে তিকরিত দখল করে নিয়েছে- কব্জা করেছে ইরাকের সবচেয়ে বড়ো তেল শোধনাগার।

  • VOA Editor

ইসলাম অনুসারি জঙ্গিরা মঙ্গলবার ইরাকে মৌসূল শহরটি কব্জা করে নেবার পর, আরো দক্ষিন পানে অগ্রসর হয়ে এখন বাগদাদের প্রায় দু’ শ কিলোমিটার দূরে, সাবেক স্বৈরশাসক সাদ্দাম হোসেইনের আদি নিবাস তিকরিত দখল করে নিয়েছে- কব্জা করেছে ইরাকের সবচেয়ে বড়ো তেল শোধনাগার।
ইরাকের আরক্ষা বিভাগীয় কর্মকর্তারা বলছেন-জঙ্গিরা বেইজি শহরে গিয়ে ঢোকে মঙ্গলবার দিনের শেষে। তারা থানায় আগুন জ্বালে,আদালত ভবনে আগুন লাগায় এবং তেল শোধনাগারের দেড় শ’য়ের মতো প্রহরিকে বের করে দেয়।জঙ্গিরা ঐ প্রহরীদেরকে শান্তিপুর্নভাবে চলে যাবার সুযোগ দেয় বলে জানা গিয়েছে। বুধবার ইরাকী টেলিভিশনের সম্প্রচারে বলা হয়- ইরাক সেনা বাহিনীর চতুর্থ ব্রিগেড কয়েক ঘন্টা বাদে বেইজি থেকে জঙ্গিদের বহিস্কার করেছে। তুরস্ক সরকারের সূত্রে জানা গিয়েছে মৌসূলের তুর্কী কনস্যুলেট জঙ্গিরা বুধবারে দখল করে নেয়। ফরাসী বার্তা সংস্থার খবরে বলা হচ্ছে-তুর্কি কনসাল ও ২৪ প্রহরী ও সহকারীকে অপহরণ করা হয়েছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স তুর্কি কর্মকর্তাদের উক্তি উদ্ধৃত করে বলছে-তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে উদ্যোগ-প্রয়াস চলছে।
ইতিমধ্যে-ইরাকের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোশিয়ার যেবারি বলেছেন-বাগদাদ সরকার বিদ্রোহিদেরকে মৌসূল থেকে খেদানোর কাজে উত্তরাঞ্চলের কূর্দী কতৃপক্ষের সঙ্গে মিলে কাজ করবে।
যাবেরী আজ বুধবার বলেছেন-এই যে দেশ আজ প্রাণঘাতি এক হূমকির মুখে এসে দাঁড়িয়েছে,এর মোকাবেলা করতে ইরাকের নেতাদেরকে এককাট্রা হতে হবে।জঙ্গিরা ইরাকের দ্বিতিয় বৃহত্তম শহরটি কব্জা করে নেয় মঙ্গলবারে।
দেশের শিয়া নেতৃত্বাধীন সরকারের জন্যে এই যে হতবুদ্ধিকর পরাজয়, সত্বর এর যথোপযুক্ত জবাব দেওয়া হবে বলে প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি।
অভিবাসন বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংগঠন বলছে- মৌসূলে আরো সহিংসতা হতে পারে,এ আশংকায় পাঁচ লক্ষ লোক ঘরবাড়ি ছেয়ে পালিয়েছে;প্রাণভয়ে- পালিয়েছে শহর থেকে দূরে-নিনেভা প্রদেশের অন্য কোথাও – অথবা পার্শ্ববর্তী কুর্দি প্রদেশ ইবরিলে।ইরাকের প্রধানমন্ত্রী নূরী আল মালিকী বলেছেন-দেশ এখন একটা দুরুহ সময় পার হচ্ছে। জরুরী অবস্থা ঘোষনা করতে তিনি অবিলম্বে সংসদের অধিবেশন ডাকার আহ্বান জানান।
ইরাক সংসদের স্পীকার ওসামা আল নুজায়ফি – যে কোনো মাপকাঠিতেই জঙ্গিদের এ মৌসূল জবরদখলকে মহা বিপর্যয়কর ঘটনা বলে আখ্যায়িত করেন।
হামলাকারিদের কাছে রকেট চালিত গ্রনেড ছিলো-ছিলো বিমান বিধ্বংসি সমরাস্ত্র ।
XS
SM
MD
LG