অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সিরিয়ায়, ইসলামিক স্টেইটের বিরুদ্ধে অভিযানে বৃটেন শরিক হতে চায়


সিরিয়ায়, ইসলামিক স্টেইটের বিরুদ্ধে বৃটেন পরিচালিত অভিযানে বৃটেন শরিক হতে চায়, এ অনুরোধ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী ডেভীড ক্যামারোনের প্রস্তাব অনুমোদন করা হবে কিনা সে প্রশ্নে বৃটিশ পার্লামেন্টের বিধায়কেরা বিতর্ক-আলোচনায় বসেছেন আজ বুধবারদিন।নিজ প্রস্তাবের পক্ষে বক্তব্যের অবতারনা করতে ক্যামরোন আজ হাজির হন পার্লামেন্ট অধিবেশনে।বলেন-ঐ জঙ্গিদের কর্মকান্ড প্রতিরোধে প্রস্তাবিত এ বিমান অভিযান হবে সম্প্রসারিত এক কর্মকৌশলেরই অংশবিশেষ।তবে,বিরোধী দল লেবার পার্টীর প্রধান জেরেমী কর্বেন এ প্রস্তাবের বিরোধী।গতকাল মঙ্গলবার রাতে ক্যামারোন, কোর্বেন এবং তাঁর মিত্রপক্ষিয়দের উল্লেখে তাঁদেরকে,এক দঙ্গল সন্ত্রাসী-দোসর রুপে চিহ্নিত করেন।দি গার্ডিয়ান পত্রিকায় প্রকাশিত এক প্রতিক্রিয়া-নিবন্ধে কোর্বেন লিখেছেন-যুক্তরাষ্ট্র,ফ্রান্স,রাশিয়া এবং অন্যান্য শক্তিধর দেশগুলো তো সিরিয়ায় বোমা হামলা চালাচ্ছেই, সেখানে বিমান হামলা আরো সম্প্রসারনে বাড়তি ফায়দা কি হবে, প্রধানমন্ত্রী তা ব্যাখ্যা করতে অপারগ হয়েছেন।কোর্বেন বলেন- বৃটিশ বিমান অভিযান মিত্রজোটকে জঙ্গিদের বিপক্ষে যদি তুলনামুলক সুবিধেজনক অবস্থানে নিয়েও যায়,তো স্থলবাহিনী তাতে করে ইসলামিক স্টেইট দখলিত ভূখন্ড কিভাবে পুনরুদ্ধার করতে পারবে,প্রধানমন্ত্রী সে প্রশ্নে প্রায় কাউকেই বোঝাতে পারেন নি।অনলাইন গবেষনা সংস্থা YouGov পরিচালিত এক সমিক্ষায় দেখা যাচ্ছে- দূ’হাজার চোদ্দ সালের পর থেকে নিয়ে এ পর্যন্ত সময়ে, সিরিয়ায় সামরিক অভিযানের ব্যাপারে বৃটিশ জনগনের সমর্থনের মাত্রা এখন সর্বনিম্ম স্তরে এসে ঠেকেছে- মঙ্গলবার ৪৮ শতাংশ লোককে এ অভিযানের প্রতি সমর্থন জানাতে দেখা গিয়েছে- গেলো সপ্তহেই যে সমর্থনের মাত্রা ছিলো ৫৯ শতাংশ।

XS
SM
MD
LG