অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

গাজার বিরুদ্ধে ইসরাইলের মারাত্মক বিমান হামলার পঞ্চম দিন আজ শনিবার । রাতভর আক্রমণে বহু লোকের প্রাণহানির পর , গত মঙ্গলবার গাজা ভুখন্ডে ইসরাইলের আক্রমণ অভিযানে শতাধিক ফিলিস্তিনির প্রাণহানি ঘটেছে। ফিলিস্তিনিরা বলছে এই সংখ্যা ১২০ জনের ও বেশি।

যদিও হামাস ও অন্যান্য জঙ্গিরা ইসরাইলে প্রায় ৭০০ টি রকেট ছুড়েছে , এ পর্যন্ত কোন ইসরাইলীর প্রাণহানি ঘটেনি। এর প্রধান কারণ ইসরাইলের রকেট প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা , Iron Dome , যা কীনা অংশত যুক্তরাষ্ট্রের অর্থায়নে নির্মিত।

ইসরাইল বলছে যে তারা গাজায় হাজার খানেক স্থানকে লক্ষ্য করে আক্রমণ চালিয়েছে এবং আরও স্থানে এই অভিযান চালানোর ইচ্ছে রাখে। ফিলিস্তিনীরা বলছে যে একটি মসজিদে বোমা বর্ষণ করলে সেটি ধ্বংসস্তুপে পরিণত হয়। ইসরাইল বলছে যে অস্ত্র লুকিয়ে রাখার জন্যে ঐ মসজিদটিকে ব্যবহার করা হচ্ছিল।

মানবাধিকার বিষয়ক জাতিসংঘের হাই কমিশনার নাভি পিল্লাই এ ব্যাপারে সংশয় প্রকাষ করেন যে ইসরাইলের সামরিক তৎপরতা আন্তর্জাতিক আইনের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখ পরিচালিত হয়েছে। ঐ আইনে অসামরিক লোকজনকে লক্ষ্য করে আক্রমণ চালানো নিষিদ্ধ।

তিনি বলছেন যে জাতিসংঘ গভীর ভাবে বিচলিত হবার মতো এমন সংবাদ পেয়েছে যে নারী ও শিশু সহ অসামরিক লোকজনের হতাহত হবার বহু ঘটনার কারণ হচ্ছে , বাড়ি ঘরে এই আক্রমণ চালানো।

ইসরাইল বলছে অসামরিক লোকজন যাতে এই অভিযানের শিকার না হয় , তারা সে চেষ্টা করেছে কিন্তু অভিযোগ করছে যে হামাস সদস্যরা আবাসিক এলাকাগুলোতে লুকিয়ে থাকছে।

যুক্তরাষ্ট্র বলেছে যে এই সহিংসতা বন্ধের জন্যে তারা মধ্যপ্রাচ্যে তাদের কিছু বন্ধুরাষ্ট্রের সাহায্য গ্রহণে রাজি রয়েছে।

XS
SM
MD
LG