অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

কাবুলে এ বছরের সব চেয়ে মারাত্মক সহিংসতার পর সেখানকার পরিস্থিতি এখন অত্যন্ত নাজুক। শুক্রবার আফগান রাজধানীর মধ্যে এবং তার আশপাশে উপর্যুপরি আত্মঘাতী বোমা হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক ঘাঁটির ন জন কর্মীসহ ৫০ জনেরও বেশি লোক নিহত হয়েছে।

সম্প্রতি তালিবান তাদের প্রতিষ্ঠাতা মোল্লা ওমরের মৃত্যু নিশ্চিত করার পর এটাই ছিল প্রথম বড় রকমের সহিংস আক্রমণ। এই সব ঘটনার কারণে ঐ বিদ্রোহী গোষ্ঠিটির সঙ্গে সরকারের শান্তি আলোচনা নিয়ে এখন প্রশ্ন উঠেছে।

নেটো বলছে যে কাবুলের প্রধান বিমান বন্দরের কাছে যুক্তরাষ্টের বিশেষ বাহিনীর ঘাঁটি Camp Integrity ‘র উপর শুক্রবার রাতে ঐ আক্রমণে একজন আন্তর্জাতিক পরিষেবক এবং আটজন অসামরিক ঠিকাদার নিহত হয়েছেন। আজ শনিবার প্র্রকাশিত ঐ বিবৃতিতে নিহতরা কোন দেশের নাগরিক সে কথা জানানো হয়নি।

ভয়েস অফ আমেরিকাকে ইমেইল করা এক বিবৃতিতেত তালিবান এই হামলার দায় স্বীকার করে বলেছে , যুক্তরাষ্ট্রের স্থাপনা লক্ষ্য করেই তিনজন আত্মঘাতী বোমাবাজকে ব্যবহার করা হয়েছে।

শুক্রবারের সব চাইতে মারাত্মক আক্রমণে পুলিশের পোশাক পরা একজন আত্মঘাতী বোমাবাজ কাবুলের আফগান পুলিশ একাডেমিতে একদল ছাত্রের উপর বিস্ফোরণ ঘটায় । পুলিশের রিপোর্টে বলা হয়েছে ঐ আক্রমণে অন্তত ২৭ জন নিহত হয় এবং আরও ২৫ জন আহত হয়েছে।

তালিবান ঐ আক্রমণের দায় ও স্বীকার করেছে । তবে এর আগে রাজধানীর একটি আবাসিক এলাকায় ট্রাকে যে বিস্ফোরণ ঘটানো হয় , তালিবান তার দায় স্বীকার করেনি। ঐ হামলায় কমপক্ষে ১৫ জন নিহত এবং আরও প্রায় ২৪০ জন আহত হয়েছে , যাদের অধিকাংশই অসামিরক লোকজন।

আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গণি বলেছেন এই ট্রাক বোমা হামলার পেছনে যারাই থাকুক না কেন, তারা কিছুই অর্জন করতে পারেনি। তিনি বলেন অসামরিক লোকজন, বিশেষত নারী ও শিশুদের হত্যা, আফগানিস্তানে আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী যে শত্রুদের পরাজিত করছে এবং তারা যে মরিয়া হয়ে উঠছে তারই প্রমাণ।

XS
SM
MD
LG