অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র অংশীদারিত্ব আলোচনা বিষয়ে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচীব মিজারুল কায়েসের বক্তব্য


ওয়াশিংটনে হয়ে গেল বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র অংশীদারিত্ব আলোচনা বৈঠক। বাংলাদেশের ২০ সদস্যের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন পররাষ্ট্র সচীব মিজারুল কায়েস এবং যুক্তরাষ্ট্র দলে নেতৃত্ব দেন পররাষ্ট্র দফতরের রাজনৈতিক বিষয়ে আণ্ডার সেক্রেটারী ওয়েন্ডি শেরম্যান।

২ দিনের এই বৈঠকে, উন্নয়ন ও শাসন ব্যবস্থা, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ এবং নিরাপত্তা ক্ষেত্রে সহযোগিতাসহ বিভিন্ন দ্বিপাক্ষিক বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়। এ মাসেই হাওয়াইতে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশ বাণিজ্য বিনিয়োগ বিষয়ে আলোচনা হবে।

আলোচনা শেষে পররাষ্ট্রসচীব আমাদের সঙ্গে সাক্ষাতকারে এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানান। তিনি বলেন ‘এবার যখন হিলারী ক্লিন্টন বাংলাদেশ সফরে গেলেন তখন প্রধান আউটকাম ছিল বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্র অংশীদারিত্ব চুক্তি স্বাক্ষর’।

চলতি বিশ্ব পরিস্থিতি সম্পর্কে অপর এক প্রশ্নের জবাবে রাষ্ট্রদুত মিজারুল কায়েস বলেন, ‘বাংলাদেশ সবসময়ই বিশ্বাস করে যে সকল ধর্ম বিশ্বাসের প্রতি নন-ডিস্ক্রিমিনেশন নিশ্চিত করা, যাতে করে কারও অনুভুতির প্রতি কোন আঘাত না হয়। এবং কোন ঘৃণার প্রকাশ আমরা মনে করি কোন বাক স্বাধীনতা হতে পারে না। কারণ বাক স্বাধীনতার ক্ষেত্রে সীমারেখা টানা হয় ……বলবো যে এই যে অত্যন্ত কুরুচিপূর্ণ, সভ্য সমাজের মূল্যবোধ বিরোধী ছবিটি তৈরী করা হয়েছে। এই ছবিকে যদি কেউ বাক-স্বাধীনতার প্রকাশ বলে জাস্টিফাই করতে চান, আমি সেটা সিভিলাইজড সমাজের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ হবে বলে মনি করি না’।

ওয়াশিংটনে তার সাক্ষাৎকার নিয়েছেন রোকেয়া হায়দার।
XS
SM
MD
LG