অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

পাকিস্তান বলেছে বিন লাদেনের মৃত্যু সন্ত্রাসীদের জন্যে বিপর্যয়কর ; ভারত বলছে পাকিস্তানই সন্ত্রাসীদের লালন করে


পাকিস্তান বলেছে বিন লাদেনের মৃত্যু সন্ত্রাসীদের জন্যে বিপর্যয়কর ; ভারত বলছে পাকিস্তানই সন্ত্রাসীদের লালন করে

পাকিস্তান বলেছে বিন লাদেনের মৃত্যু সন্ত্রাসীদের জন্যে বিপর্যয়কর ; ভারত বলছে পাকিস্তানই সন্ত্রাসীদের লালন করে

পাকিস্তান, ওসামা বিন লাদেনের মৃত্যুকে বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাসী গোষ্ঠিদের জন্যে একটা বিরাট বিপর্যয় বলে অভিহিত করছে তবে অন্যদিকে পাকিস্তানি তালিবান , যুক্তরাষ্ট্র ও পাকিস্তানের স্থাপনাগুলির ওপর আক্রমণ আরো জোরালো করার প্রত্যয় প্রকাশ করছে।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রক আজ সোমবার বলেছে যে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট সোমবার ভোরে পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট আসিফ আলী জারদারীকে ফোনে পাকিস্তানি শহর অ্যাবটাবাদে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক অভিযানে বিন লাদেনের হত্যার বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

পাকিস্তানি মুখপাত্র বণেলছেন যে রোববারের ঐ অভিযান যুক্তরাষ্ট্রের ঘোষিত নীতি অনুযায়ী পরিচালিত হয়েছে যে বিন লাদেনকে বিশ্বের যেখানেই খুজে পাওয়া যাবে , সেখানেই তাকে যুক্তরাষ্ট্রের বাহিনী নির্মূল করবে।

প্রেসিডেন্ট ওবামার ঘোষণার কয়েক ঘন্টা পর সরকারী প্রতিক্রিয়া জানানো হলো।

কর্মকর্তারা ভয়েস অফ আমেরিকাকে জানান যে পাকিস্তান সহ কোন দেশকেই যুক্তরাষ্ট্র এই অভিযান চালানোর কোন গোপন সংবাদ দেয়নি এবং খোদ যুক্তরাষ্ট্র সরকারের ও খুব কম লোকই এ সম্পর্কে আগাম অবহিত ছিলেন।

সোমবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রক জানায় যে আল ক্বায়দা এরই মধ্যে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। পাকিস্তানী তালিবান যুক্তরাষ্ট্র ও পাকিস্তান সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নিতে আরও আক্রমণ চালানোর হুমকি দিয়েছে।

পাকিস্তানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের সাবেক সচিব তাসনিম নুরানী বলছেন যে পাকিস্তানে উগ্রপন্থিরা সরকারকে এ জন্যে দায়ি করে আরও সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালাতে পারে বলে তিনি মনে করেন।

ভারত বলছে যে পাকিস্তানের ভেতরে আল ক্বায়দা প্রধান ওসামা বিন লাদেনের প্রমাণ করেছে যে দেশটি এখন ও সন্ত্রাসবাদি আর জঙ্গি গোষ্ঠিগুলোর অভয় আশোয় হয়ে রয়েছে।

আজ এক বিবৃতিতে ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী পি চিদাম্বারাম উদ্বেগের সঙ্গে বলেন যে বিন লাদেন পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদ থেকে মাত্র ৫০ কিলোমিটার দূরে প্রাসাদতুল্য বাড়িতে লুকিয়ে ছিলেন। তিনি বলেন যে এই সত্য ঘটনাটি ভারতের এই উদ্বেগকে বাড়িয়ে তোলে যে বিভিন্ন সংগঠনের সন্ত্রাসীরা পাকিস্তানের ভেতরে অভয়ে থাকতে পারছে।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রী ওসামার হত্যাকে বিজয়ের একটি মাইল ফলক বলে উল্লেখ করেন এবং বলেন যে এখন বিশ্বকে এই সব অভয় আশ্রয় নিশ্চিহ্ন করার ওপর চাপ দিতে হবে , যেগুলো আমাদের আশ পাশেই রয়েছে।

দিল্লির সেন্টার ফর পলিসি রিসার্চ এর বিশ্লেষক ভারত কারনাদ বলেন এ ধরণের উপস্থিতির কথা পাকিস্তান সেনাবাহিনী জানবে না , সেটা বিশ্বাসযোগ্য নয়। আর যদি জেনেই থাকে তা হলে এটা মনে করা যুক্তিঙ্গত যে তারা পাকিস্তান সেনাবাহিনীর আশ্রয়ে থেকেছে।

এই ঘটনার পর সম্ভাব্য পাল্টা আক্রমণের আশংকায় ভারতে নিরাপত্তা বাহিনীকে সতর্ক অবস্থায় রাখা হয়েছে।

কোলকাতা সংবাদদাতা গৌতম গুপ্ত এই প্রতিক্রিয়া সম্বন্ধে আরও জানাচ্ছেন :

এ দিকে বাংলাদেশের প্রতিক্রিয়া নিয়ে ঢাকা সংবাদদাতা আমির খসরুর প্রতিবেদন :

XS
SM
MD
LG