অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আইএস সন্দেহে পাকিস্তানে বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার


দাইশ; ইসলামিক ষ্টেট বা আইএস এর সংক্ষিপ্ত আরবীয় নামের এই সংগঠনের সঙ্গে সম্পৃক্ততার সন্দেহে পাকিস্তানী পুলিশ দেশটির বড় বড় কয়েকটি শহর থেকে বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছেন। সিরিয়া ও ইরাকে শক্ত ঘাঁটি স্থাপনকারী এই চরমপন্থী দলটি; ইসলামপন্থী জঙ্গীদের উৎপাতে এম্নিতেই সন্ত্রস্ত এই অঞ্চলটিতে তাদের প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করছে; যখন এমন আলোচনা চলছে, ঠিক সেই সময় আইএস এর সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার সন্দেহে পাকিস্তানের বিভিন্ন শহরে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হল।

করাচী লাহোর এবং পেশোয়ারসহ পাকিস্তানের বড় বড় শহরে সাম্প্রতিক সময়ে ইসলামিক স্টেটের চরমপন্থী আদর্শ প্রচারে স্টিকার দেয়াল লিখন প্যামফ্লেট বিতরণের মত কর্মকান্ড বেড়েছে।

রাজধানী ইসলামাবাদসহ দেশের বিভিন্ন অংশ থেকে এই ধরণের কর্মকান্ডের সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে পুলিশ বহু মানুষ গ্রেপ্তার করেছে। জব্দ করা হয়েছে, বই কম্পিউটারসহ ইসলামিক ষ্টেটের আদর্শ প্রচারের নানা উপকরণ।

দেয়াল লেখন এবং স্থানীয় কিছু জঙ্গী দলের, ইসলামিক স্টেটের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করার ঘোষণা মুছে ফেলার কাজ করছেন সরকারী লোকজন।

বৃহস্পতিবার ইসলামাবাদে সাপ্তাহিক ব্রিফিং এ পাকিস্তানের পররাস্ট্র মন্ত্রনালয়ের মুখপাত্রী তাসনিম আসলাম নিশ্চিত করে বলেন ইসলামিক স্টেটের সঙ্গে যুক্ত সন্দেহে বেশ কয়েকজনকে চিহ্নিত করা হয়েছে যারা কারাগারে আছে। তিনি তাদের পরিচয় প্রকাশ করেনি নি।

তিনি বলেন "পুলিশ তাদেরকে দেয়াল লেখনের অভিযোগে গ্রেপ্তার করেছে। তদন্ত করা হচ্ছে যে তারা স্রেফ পয়সার বিনিময়ে কাজ করছিল নাকি দাইশ এর সঙ্গে সম্পৃক্ত। কারন অনেক সময় ভীতি সৃষ্টি করার জন্য এমন করা হয়ে থাকে। তদন্ত চলছে, তাদের উদ্দেশ্য কি তা জানার। আমার ধারণা যাদেরকে ধরা হয়েছে তাদের মধ্যে কোনো বিদেশী নেই”।

তিনি বলেন পাকিস্তান সেনাবাহিনী সম্প্রতি দেশের উত্তর পশ্চিম অঞ্চলে জঙ্গী বিরোধী তৎপরতা বৃদ্ধি করেছে। পাকিস্তানী সীমানার মধ্য হতে কোন জঙ্গী কর্মকান্ড চালাতে দেয়া হবে না, এই সংকল্প নিয়েই সেনাবাহিনী তা করেছে।

“পাকিস্তানে দাইশের কোনো ছায়া পড়তে দেয়া হবে না। ফলে আমরা তা রোধ কল্পে সমন্বিত সন্ত্রাস বিরোধী কর্মকান্ড চালাচ্ছি”।

উত্তর পশ্চিমাঞ্চলের আফগানিস্তান সীমান্তের কাছের আদিবাসি এলাকায় পাকিস্তানী সেনাবাহিনী, সুন্নী চরমপন্থী, সাধারণভাবে পাকিস্তানী তালিবান বলে যারা পরিচিত; তাদের সঙ্গে যুদ্ধে লিপ্ত রয়েছে।

গত মাসে ৫ পাকিস্তানী তালিবান কমান্ডার এক ভিডিও বার্তায় ইসলামিক স্টেটের প্রতি তাদের সমর্থণের ঘোষণা প্রচার করেছে। তবে জুনুদুল্লাহ নামের অপর এক জঙ্গী দলও, ঐ মধ্য পূর্ব জিহাদী সংগঠনের প্রতি, তাদের আনুগত্য প্রকাশ করেছে।

গত মাসে পাকিস্তানের এক প্রাদেশিক সরকারের ফাঁস হওয়া গোপন এক রিপোর্টে কেন্দ্রীয় সরকারকে সতর্ক করে দিয়ে বলা হয়েছে, ইসলামিক স্টেট পাকিস্তানের অভ্যন্তরে, নিষিদ্ধ সুন্নী দলসমূহ থেকে, ১২ হাজার যোদ্ধা নিয়োগ করেছে। সরকারী কর্মকর্তারা যদিও বলেছে এটা তাদের নিয়মিত গোয়েন্দা রিপোর্টের অংশমাত্র।

পাকিস্তান এবং প্রতিবেশী আফগানিস্তান দুই দেশেই আল কায়েদার সঙ্গে সম্পৃক্ত জঙ্গী দল রয়েছে, যারা দুই দেশের সীমান্তেই জঙ্গী তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।

XS
SM
MD
LG