অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

প্রধানমন্ত্রীর কাছে বাংলাদেশ বিমানের পাইলটদের নিঃশর্ত ক্ষমাপ্রার্থনা

  • মতিউর চৌধুরী

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বিমানের পাইলটদের বৈঠক

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বিমানের পাইলটদের বৈঠক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের পাইলটদের প্রতি সর্বোচ্চ নিষ্ঠার সংগে দায়িত্ব পালনের আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, তাদের ধর্মঘটের কারণে গত কয়েকদিনে দেশের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স পাইলট এসোসিয়েশনের (বাপা) ১৬ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল গতকাল সকালে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবণে সাক্ষাৎ করলে তিনি এ আহ্বান জানান।

হজ মৌসুমে আন্দোলনের জন্য বৈমানিকরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে দুঃখপ্রকাশ করে নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন।
বৈমানিক ধর্মঘটের কারণে ফ্লাইট সূচিতে জটিলতা দেখা দেওয়ায় যাত্রীদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেছে বিমান কর্তৃপক্ষ। অন্যদিকে দাবি-দাওয়া বাস্তবায়নের প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাস মিলেছে বলে জানিয়েছে বৈমানিকদের সংগঠন বাংলাদেশ এয়ারলাইন পাইলটস অ্যাসোসিয়েশন (বাপা)।

প্রধানমন্ত্রী প্রতিনিধিদলকে বলেছেন,‘ধর্মঘটের কারণে বিদেশেও দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে। ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা কাম্য নয়।“বিশেষ করে হজ মৌসুমে পাইলটদের ধর্মঘটকে তিনি দুঃখজনক বলে উল্লেখ করেন।

বিমানের পাইলটরা অবশ্য গতরাতেই তাদের প্রায় ৭০ ঘণ্টার ধর্মঘটের অবসান ঘটিয়ে কাজে যোগদান করেন। বর্ধিত সময়ের জন্য বীমা ও পুনর্বাসনের সুবিধা ঘোষণা ছাড়া অবসরের বয়সসীমা ৫৭ থেকে বাড়িয়ে ৬২ বছর নির্ধারণে বিমান কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে তারা এই ধর্মঘট শুরু করেন।
মুখপাত্র জানান, ৪৫ মিনিট স্থায়ী এই সাক্ষাতকালে প্রধানমন্ত্রী পাইলটদের বলেন, ‘পাইলট স্বল্পতার কারণে সরকার নির্বিঘ্নে বিমান চলাচলের স্বার্থে তাদের অবসরের বয়সসীমা বৃদ্ধি করেছে।’
প্রধানমন্ত্রী পাইলটদের বলেন, ‘বর্ধিত সময়ের ক্ষেত্রে আপনাদের সুযোগ-সুবিধা আন্তর্জাতিক বিধি অনুযায়ী নির্ধারণ করা হবে।’

XS
SM
MD
LG