অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

দশকের পর দশক কেটে যাচ্ছে, কিন্তু মিলছে না কাশ্মির সমস্যার স্থায়ী সমাধান। সর্বশেষ বিক্ষোভ ঘটল এক তরুণ জনপ্রিয় জঙ্গীর পুলিশের গুলিতে মৃত্যু হওয়ায়। পুলিশের দাবি, এটা সংঘর্ষের ঘটনা। বিরোধীদের দাবি, পুলিশ মারবার জন্যই গুলি করেছে।

ভারত সরকারের মতে, পাকিস্তানের প্ররোচনায় বিক্ষোভ ঘটছে। বিরোধীরা প্রশ্ন করছেন, কেবল প্ররোচনায় হাজার হাজার মানুষ বিক্ষোভ দেখাতে পথে নামতে পারেন? অসংখ্য তরুণ সামিল হন শোক মিছিলে? দাবি উঠছে স্বাধীনতার। বলা বাহুল্য, কোনও সরকারই এ দাবি মানবে না। তাহলে কি সমাধান?

কাশ্মিরের জন্য স্বায়ত্বশাসন, নাকি, বাকি দেশের সঙ্গে একাত্মীকরণ? বিক্ষোভ যখন তুঙ্গে, সরকার কয়েক দিনের জন্য কাশ্মিরে সব খবরের কাগজের প্রকাশ বন্ধ রেখেছিল। বিরোধীরা বলছেন, এ তো যেন জরুরি অবস্থা জারি। এক দিকে বিক্ষোভ, অন্য দিকে পুলিশ আর সামরিক বাহিনি। মাঝখানে পড়ে ও রাজ্যের সাধারণ মানুষ। বছরের পর বছর তাঁরা যেন জাঁতাকলে আটকে রয়েছেন।

XS
SM
MD
LG