অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ক্লিভল্যান্ডে শুরু হয়েছে রিপাবলিকান দলের কনভেনশন


সেলিম হোসেন

ওহাইও রাজ্যের ক্লিভল্যান্ডে ১৮ জুলাই সোমবার দুপুর একটায় আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়েছে রিপাবলিকান দলের কনভেনশন। রিপাবলিকান দলের কনভেনশন কমিটির চেয়ারম্যান রেইন্স প্রিবাস মূল মঞ্চে হাতুড়ি পিটিয়ে উদ্বোধন করেন সম্মেলনের। ২১শে জুলাই শেষ হবে কনভেনশন।

শত সহস্র মানুষ এখন এই শহরে। দলীয় নেতাকর্মীরাতো আছেনই, সম্মেলনের খবর সংগ্রহ করতে দেশ বিদেশের কয়েক হাজার সাংবাদিক এসেছেন ক্লিভল্যান্ডে। পুরো শহর ঢেকে দেয়া হয়েছে নিরাপত্তা চাদরে।

গতকাল রবিবার ১৭ই জুলাই সকালে ক্লিভল্যান্ড এয়ারপোর্টে ল্যান্ড করলাম। তখন থেকেই লক্ষ্য করেছি শহরটিতে রিপাবলিকান কনভেনশনের জন্য সাজ সাজ রব।

RMC 1

RMC 1

চারিদিকে সেচ্ছাসেবী। প্লেনথেকে নামতেই জনে জনে জিজ্ঞেস করছে কোনো সাহায্য লাগবে কি না। কেউ পানির বোতল এগিয়ে দিচ্ছে, কেউ কুশলাদি জানতে চাচ্ছে। একেবারে যেনো জামাইআদর। প্রায় শতবর্ষী এক নারী স্বেচ্ছাসেবী বললেন, ”দিস ইজ দা মোস্ট বিউটিফুল সিটি অব দ্যা ওয়ার্ল্ড। নো ক্রাইম নো ব্যাড থিংস হেয়ার”।

ষাটোর্ধ এক মহিলা পানির বোতল এগিয়ে দিল। আমি বললাম এই শহরে প্রথম কেউ আসলে কি এভাবেই সবসময় আপ্যায়ন করা হয়? মহিলা হেসে বলল “ওহ ইয়েস”।পাশের এক ভদ্রলোক বলল, ”কাম জাস্ট এ উইক লেটার এ্যান্ড ইউ উইল সি দা ডিফরেন্স”।

এয়ারপোর্টের নানা স্থানে দলে দলে স্বেচ্ছাসেবী স্বাগত জানাচ্ছেন। বিলবোর্ড, ব্যানার, ডিজিটাল সাইন, ইত্যাদিতে ’কনভেনশনে স্বাগতম লেখা উঠছে’। তবে খানিক্ষন পরপর পুলিশ সোয়াত ন্যাশনাল গার্ডসহ নানা ধরনরে নানা পোষাকের নিরাপত্তা কর্মীর সমাহার দেখতে পাই। কিছুক্ষন পরপর গাড়ী থেমে যায়; কারন কি? রাস্তা বন্ধ। নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সব ধরনের প্রয়াস নেয়া হয়েছে। মোড়ে মোড়ে ডিটুর-অর্থাৎ বিকল্প রাস্তায় উঠতে হচ্ছে।

এবারকার এই রিপাবলিকান কনভেনশনে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ধরনের নিরাপত্তার চাদরেঢাকা হয়েছে। হাজার হাজার পুলিশ ন্যাশনাল গার্ড সদস্য সোয়াত কমান্ডো এবং আন্ডার কভার অফিসার ক্লিভল্যান্ডে আনা হয়েছে দেশের প্রায় সব রাজ্যথেকে।

কনভেনশন সেন্টারের চার বর্গমাইল এলাকায় কড়া প্রহরা বসানো হয়েছে। প্রত্যেকজন মানুষকে নজরদারী করছেন অসংখ্য নিরাপত্তাকর্মী। তারপরও নিরাপদ বোধ করছেন না এখানকার অধিবাসিরা।

RMC 2

RMC 2

ডাউনটাউন ক্লিভিল্যান্ডের পাশে হায়াত প্যালেস হোটেলে এক নিরাপত্তা অফিসারকে জিজ্ঞেস করলাম, “কেমন হবে কনভেনশন”। বেশ রাগী কণ্ঠেই বলে উঠলো, “সারা জীবন এই শহরে পার করেছি, বহু কনভেনশন দেখেছি; কিন্তু এবার ভয় পাচ্ছি। এখানে মানুষের হাতে বন্দুক রয়েছে। ডনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে যারা আসবে, তাদের অনেকের হাতেও বন্দুক আছে। আমি আমার সুপারভাইজারকে অনুরোধ করে কনভেনশন এলাকার বাইরে আমার ডিউটি নিয়েছি। জীবনক এই বয়সে বিপদের মুখে ঠলে দিতে চাই না”।

আজ বিকাল ৫টায় ’কিপ এ্যামেরিকা সেফ’ এই স্লোগান দিয়ে শুরু হচ্ছে কনভেনশনে রিপাবলিকান নেতাদের বক্তৃতা পর্ব। যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তাকে প্রধান বিবেচ্য ধরে আজকের অংশ নিচ্ছেন ডনাল্ড ট্রাম্পসহ দলীয় নেতৃবৃন্দ।

ট্রাম্প বিরোধী বিক্ষোভকারীরা যেনো কোনো ধরনের সহিংসতা ঘটাতে না পারে সেজন্য ক্লিভল্যান্ড পুলিশ বিশেষ নিরাপত্তা ব্যাবস্থা নিয়েছে। শহরের পুলিশ প্রধান ক্যালভিন উইলিয়ামস রোববার রাতে বাইসাইকেল চালিয়ে নিরাপত্তা বলয় পরিদর্শন করেছেন। এ উডপলক্ষ্যে ২ হাজার বাইসাইকেল আরোহী নিরাপত্তা কর্মী নিয়োগ করা হয়েছে। ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’, নেভার ট্রাম্প গ্রুপ’সহ ট্রাম্প বিরোধী বিভিন্ন প্রতিবাদকারী কনভেনশন সেন্টারের আশেপাশে অবস্থান নিয়েছেন ইতিমধ্যেই।

আজ বিকেলে কনভেনশনে অন্যান্যরে মধ্যে বক্তব্য রাখছেন দা বোল্ড এ্যান্ড দা বিউটিফুল সোপ অপেরা অভিনেতা এ্যান্থনি সাবাতো জুনিয়র, হ্যাপী ডেইস এর ষ্কট বাইও, নিউইয়র্ক এর সাবেক মেয়র রুডি জুলিয়ানি, প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা সংস্থার সাবেক পরিচালক লে: জেনারেল (অব:)মাইকেল ফ্লিন এবং ট্রাম্প পত্নি মেলনিা ট্রাম্পসহ দলীয় নেতৃবৃন্দ।

যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তাকে মূল থিম রেখে কনভেনশনে যুদ্ধ, পররাষ্ট্র নীতি, বেনগাজীর যুক্তরাষ্ট্র কন্সুলেট কার্যালয়ে হামলা, অভিবাসনসহ নানা বিষয়ে বক্তব্য রাখবেন তারা।

রিপাবলিকান দলের কনভেনশনের সবশেষ অবস্থা জানতে ক্লিক করুন নিচের অডিও'তে।

XS
SM
MD
LG