অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

মিশরে ইসলামপন্থিরা নির্বাচনের ফলাফলের এগিয়ে রয়েছে


মিশরে ইসলামপন্থিরা নির্বাচনের ফলাফলের এগিয়ে রয়েছে

মিশরে ইসলামপন্থিরা নির্বাচনের ফলাফলের এগিয়ে রয়েছে

বিপর্যস্ত , বেদনাক্লিষ্ট পরিস্থিতিতে আটকিয়ে পড়া বাচ্চাদের নিয়ে শিশুদেরকে নিয়ে আপনি একটা সংগঠন গড়ে তুলেছেন , এসব বাচ্চা বিশেষ কোনো এলাকার কিনা , এদের নিযে কি করছেন আপনারা , এ সংগঠন কিভাবে কোথায় কবে গড়লেন ?

আপনি বৃত্তর ওয়াশিংটনে ম্যারীল্যান্ড-ভার্জিনিয়া ,ওয়াশিংটন ডিসি এলাকায় , শিগাগোতে dci বা distreed children and infants international এর . chapter চালু ক’রেছেন – কি রকম কাজ হ’চ্ছে - কেমন সাড়া পাচ্ছেন ?

উপসংহারে – আপনার জন্ম লেখাপড়া কোথায় , এ দেশে কবে আসেন – আমাদের শ্রোতাদের সে ব্যাপারে অবহিত করূন ।

ডক্টর এহসানূল হক – আপনি আমাদের সঙ্গে কথা বললেন , আমাদের সময় দিলেন – আপনাকে ধন্যবাদ ।

* মিশরের সংসদ নির্বাচনের প্রথম পর্যায়ের আংশিক ফলাফলে দেখা যাচেছ যে ইসলামপন্থি দলগুলি , দলীয় ভিত্তিদে ৬৫ শতাংশ ভোটে এগিয়ে আছে , যা কীনা যেমনটি ভাবা গিয়েছিল তার চেয়ে শক্তিশালি অবস্থানে গিয়েছে এবং এর ফলে উদারপন্থি দলগুলি কোণঠাসা হয়ে পড়েছে।

মিশরের উচ্চ নির্বাচন কমিশন রোববার যে সংখ্যা প্রকাশ করেছে তাতে মুসলিম ব্রাদারহুডের ফ্রিডম এন্ড জাস্টিস পার্টি প্রদত্ত ভোটের ৩৬.৬ শতাংশ পেয়ে শীর্ষে রয়েছে এবং তার পর পরই রয়েছে কট্টরপন্থি সালাফিস্ট নুর পার্টি । তারা পেয়েছে ২৪.৪ শতাংশ ভোট। মধ্যপন্থি ইসলামি দল ওয়াসাত পার্টি পেয়েছে ৪.৩ শতাংশ ভোট।

উদারপন্থি ইজিপশিয়ান ব্লক ১৩.৪ শতাংশ ভোট পেতে সক্ষম হয়েছে এবং এর ফলে ঐ জোট তৃতীয় স্থানে রয়েছে।

ওয়াশিংটনে মিডল ইস্ট স্টাডিয বাত্সরিক আলোচনায় জন হপকিন্স য়ুনিভার্সিটির ভিযিটিং প্রফেসার ডক্টর রবার্ট ও ফ্রডম্যান বলেন -

বাকি দু’টি পর্যায়ের ভোটেও যদি এই ধারাটাই অব্যহত থাকে তাহলে হয়তোবা দেখা যাবে যে , অন্তত: সংসদের নিম্ন পরিষদে হলেও মুসলিম পন্থী পার্টীরই জয় হবে । তবে , মুসলীম ব্রাদারহূড পার্টির দৃষ্টিকোন থেকে তাদের জন্যে এটাই প্রজ্ঞার পরিচায়ক হবে যে , পশ্চিমের সঙ্গে , এবং দেশে ধর্মনিরপেক্ষদের সঙ্গে সমঝোতার লক্ষে মহিলাদের আশ্বস্ত করতে , কপটিক খৃষ্ষ্টানদের আশ্বস্ত করতে ধর্মনিরপেক্ষ একটি পার্টীর সঙ্গে জোটে যাওয়া – ভোটে দ্বিতিয় স্থান দখলকারী সালাফিনদের সঙ্গে নয় । ।

প্রফেসার ফ্রীডম্যানের মতে মুসলিম ব্রাদারহূডের দু’টি ভাগ রয়েছে –নবীন বয়সিদের দল এক দিকে অপরপক্ষে রয়েছেন প্রবীনেরা । নবীন বয়সিদের দৃষ্টিভঙ্গি স্বভাবত:ই অনেক বেশি প্রগতীশীল ।

নির্বাচন শেষ হলে তবেই বোঝা যাবে সংসদের গঠনবিন্যাসটা কেমন হবে । তার ওপরই নির্ভর করবে সব কিছু । কে নবতুর্কি আর কে না সেটা তখনই কেবল পরখ করা যাবে – তখনই কেবল পরিস্থিতি স্বচ্ছ হবে বলেন জনহপকিন্স য়ুনভার্সিটির ডক্টর রবার্ট ও ফ্রিডম্যান ।

ইস্রাইলের সঙ্গে সম্পর্ক বিষয়ে জনস হপকিন্স য়ুনিভার্সিটির ডক্টর রবার্ট ও ফ্রীডম্যান বললেন – বেশ কয়েকটি কারন রয়েছে মিশরের যেকোনো সরকারই কেনই বা ইস্রাইলের সঙ্গে সূসম্পর্ক বজায় রাখতে চাইবে সে প্রশ্নে । এটা অবশ্য আবারও ঐ নির্বাচনের পরেই বোঝা যাবে পরিস্কারভাবে ।

গত সপ্তার এই নির্বাচনে ৪৯৮ আসন বিশিষ্ট সংসদের নিম্ন কক্ষের প্রায় তিরিশ শতাংশের সদস্যত্ব নিশ্চিত হবে । সোমবার মিশরবাসী নির্দিষ্ট প্রার্থিদের ৫২ টি আসনের জন্যে ফিরতি নির্বাচনে ভোট দেবেন ।

XS
SM
MD
LG