অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ট্রাফিক আর পার্কিং টিকেট বেশ ভালো পয়সা খরচ করিয়ে দেয়। আর সেই টিকেটগুলো যদি নো গিল্টি করে মামলা মোকদ্দমায় গড়ানো হয় তাহলেতো একজন উকিলের প্রয়োজন পড়ে। তাতে খরচ আরো বেশিও হতে পারে। বাস্তব উকিল বা এ্যাটর্নীর স্থলে যদি রোবট কাজটি করে দেয় তাহলে কেমন হয়? DoNotPay নামে পৃথিবীর প্রথম রোবট এ্যাটর্নীর কথা শোনাই।

DoNotPay রোবট এ্যাটর্নীর শ্রষ্ঠা জশুয়া ব্রাউডার; ট্রাফিক টিকেট নিয়ে আদালতে লড়ার জন্য তিনি একটি সাইড প্রজেক্ট হিসাবে করেছিলন এটি। এখন এটিই তার আসল কাজ।

“এটিকে একটি পাশ্ব প্রকল্প হিসাবে শুরু করেছিলাম। ৯ মাস পর দেখলাম এর মধ্যে দিয়ে লক্ষ লক্ষ ডলার আয় হয়। মানুষের সেবাও হয়”।

জশুয়া বললেন রোবট এ্যাটর্নী আসলে একটি ওয়েবসাইটের মতো যেখানে চ্যাটিংটাই আসল। ভুক্তভোগীর তথ্য সংগ্রহ করা, তারপর সেগুলোকে তথ্য প্রমানাদি দিয়ে আদালতে উপস্থাপন করাই এর কাজ।

“উদাহরনস্বরূপ বলি, সে আপনাকে জিজ্ঞেস করবে, পার্কিং স্থান কি খুব ছোটো ছিল? অথবা পার্কিং সাইন বুঝতে আপনার কি অসুবিধা হচ্ছিলো?”

DoNotPay পার্কিং সংক্রান্ত মামলা মোকদ্দমা ছাড়াও বিলম্বিত ফ্লাইট ও সম্পত্তি সংক্রান্ত মামলা হাতে নেবে। তবে ষ্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ব্রাউডার বললেন, কোনোদিন হয়তো তিনি বিশ্বের সর্ববৃহৎ রোবোট উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের মালিক হবেন।

XS
SM
MD
LG