অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ইবোলা রোগের লক্ষন এবং ম্যালেরিয়া রোগের লক্ষন এর মধ্যে সাদৃশ্য রয়েছে।


স্বেচ্ছাসেবী ডাক্তারদের সমন্বয়ে সংগঠিত সংগঠন ‘Doctors Without Borders’ এবং সিয়েরা লিয়নের স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়, রাজধানী Freetown এবং তার আশে পাশের ৫টি জেলায় ম্যালেরিয়ার ওষুধ সরবরাহ করছে।

Teresa Sancristóval ম্যালেরিয়ার ওষুধ সরবরাহ কর্মসূচীর তত্বাবধানে রয়েছেন।

তিনি বলেছেন, সিয়েরা লিয়ন, ম্যালেরিয়ার ব্যাপক সংক্রমনের দেশগুলোর মধ্যে ৫ম স্থানে রয়েছে। সেখানে পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুদের মৃত্যুর প্রধান কারন ম্যালেরিয়া।

স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় এর ৬০০০ এর মত স্বেচ্ছাসেবক, ম্যালেরিয়ার ওষুধ সরবরাহের কাজ করে যাচ্ছে। এই ওষুধগুলো ম্যালেরিয়া রোগ প্রতিরোধ এবং চিকিতসা দুটো ক্ষেত্রেই কাজে লাগছে।

মানুষের ঘরে ঘরে ম্যালেরিয়ার ওষুধ পৌছে দেওয়ার এই কর্মসূচী, ইবোলা চিকিতসা কেন্দ্রের চাপ কিছুটা হলেও কমাচ্ছে। ইবোলা রোগের লক্ষনগুলোর সাথে ম্যালেরিয়া রোগের লক্ষনের মিল থাকার কারনে, আসল রোগ সনাক্ত করা কঠিন হয়ে পড়ছে।

রোগী অসুস্থ বোধ করলে, জ্বর, ডাইয়েরিয়া, এমনি কিছু লক্ষন দেখা দেয়, যা কিনা ইবোলা অথবা ম্যালেরিয়া দুটো রোগের ক্ষেত্রেই হতে পারে।

তবে, এ বছর ম্যালেরিয়াইয় আক্রান্তের সংখ্যা কতটুকু বেড়েছে, তা নির্ণয় করা যাচ্ছে না, কারন ইবোলা সংক্রমনের ভয়ে চিকিতসা কেন্দ্রগুলোতে মানুষজনরা যাচ্ছ না।

Teresa বলেছেন, ফ্রিটাউন এবং পশ্চিমাঞ্চলের এলাকাগুলোতে ম্যালেরিয়ার প্রতিষেধক আবার সরবরাহ করা হবে ২০১৫ সালের জানুয়ারী মাসে।

XS
SM
MD
LG